fbpx
পশ্চিমবঙ্গ

পূর্ব মেদিনীপুরে আংশিক সময়ের শিক্ষকদের বিক্ষোভ

রাজকুমার আচার্য, নন্দীগ্রাম: বছরের পর বছর সরকারি বিদ্যালয়ে প্রায় বিনা পারিশ্রমিকে পড়াচ্ছেন তাঁরা। বিপুল সংখ্যক স্থায়ী শিক্ষকদের অভাব তাঁরা মেটালেও নিজেরাই বঞ্চিত, অবহেলিত। লকডাউনে নূন্যতম পারিশ্রমিকটাও মিলছে না! তাই পূর্ব মেদিনীপুর জেলার আংশিক সময়ের শিক্ষকরা শুক্রবার বৃহৎত্তর আন্দোলনের প্রস্তুতি সভা করলেন নন্দীগ্রামে।

পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যালয় আংশিক সময়ের শিক্ষক সংগঠনের পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কমিটির এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা কমিটির সভাপতি পরিতোষ বেরা, সম্পাদক শুকদেব সাহু, পুতুলরানি মিদ্যা, নবনীতা নায়েক, সুবল জানা, ডালিয়া দাস, দেবব্রত জানা সহ জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের আংশিক সময়ের শিক্ষকরা। তাঁদের প্রধান তিনটি দাবি, স্থায়ীকরণ, নাহ্য বেতন প্রদান এবং আবসরকালীন ভাতা প্রদান। সরকারি শিক্ষা মহলের বিভন্ন দপ্তরে বহুবার আবেদন নিবেদন করেও কোনও সুরাহা হয়নি তাই এবার তাঁরা বৃহৎত্তর আন্দোলের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

আংশিক সময়ের শিক্ষরা বলেন, ‘আমাদের মতো সারা রাজ্যে প্রায় দশ হাজার শিক্ষক রয়েছেন। যাঁদের মাসিক বেতন মাত্র দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা। এই টাকায় সুস্থভাবে জীবন চালানো যায় না। লকডাউনে স্কুল বন্ধ থাকায় এই সামান্য পারিশ্রমিকও দেওয়া বন্ধ করে দিয়ছে স্কুল। ডিআই, ডিএম, সরকারি শিক্ষা দপ্তর এমনকী মুখ্যমন্ত্রীর কাছেও আবেদন করা হয়েছে আমাদের বিষয়টি নিয়ে ভাবার জন্য। কোনও সদুত্তর মেলেনি। তাই বৃহৎত্তর আন্দোলনের পথে যাচ্ছি আমরা।’

প্রসঙ্গত, বিদ্যালয়ে শিক্ষদের ঘাটতি মেটাতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষরা মৌখিকভাবে এই শিক্ষদের নিয়োদ করেন। অসংখ্য শিক্ষক বছরের পর বছর প্রায় বিনা পারিশ্রমিকে ছাত্রছাত্রীদের পড়াচ্ছেন। স্থায়ী শিক্ষদের মতো প্রায় এঁদের সমস্ত দায়িত্ব নিতে হয়।

Related Articles

Back to top button
Close