fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘দেখবি জ্বলবি, আর লুচির মতো ফুলবি’ ঘাটালে মন্তব্য শুভেন্দুর

সুদর্শন বেরা, পশ্চিম মেদিনীপুর: কয়েক মাস ধরে দলীয় কর্মসূচি থেকে শুরু করে সরকারি বিভিন্ন কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছিল না রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে। যা নিয়ে জল্পনা উঠেছিল দল পরিবর্তন করার। অবশ্য এই নিয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষণকারীরা যথেষ্ট চিন্তিত ছিল। অবশেষে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের জেলা সভাপতি সাংসদ শিশির অধিকারী কার্যত এই বিষয়ে জল ঢেলে দিয়েছিলেন। এরপর নন্দীগ্রামে তৃণমূলের সভা ও পাল্টা সভায় স্পষ্ট যে ধীরে ধীরে দল থেকে অনেকটাই দূরে সরে যাচ্ছেন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। যদিও তার মুখ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। গত দুইদিন আগে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রামে শহিদ স্মরণ সভা থেকে একাধিক কটুক্তি করেছিলেন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। অবশ্য সেই বিষয় নিয়ে পাল্টা সভা করতে এসে ফিরহাদ হাকিম ও দোলা সেনের মুখ থেকে শোনা গিয়েছিল পাল্টা সুর।

বৃহস্পতিবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটালে বিজয়া সম্মিলনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার একাধিক পুরাতন তৃণমূল নেতৃত্বদের কথা উঠে এসেছিল শুভেন্দুর গলায়। জঙ্গলমহলের নেতৃত্ব থেকে শুরু করে পৌরসভা এলাকার বিভিন্ন নেতৃত্বের প্রশংসা করেছিলেন তিনি। পাশাপাশি অবিভক্ত মেদিনীপুরের বিভিন্ন প্রসঙ্গ টেনে একাধিক কটুক্তি করেছিল পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। অবশেষে তার অনুগামী ও এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে তার মুখে শোনা গিয়েছিল তারা ভালো আছেন কিনা এবং আগামীদিনে তার সঙ্গে থাকবে কিনা। তিনি বলেন, পান্তা খাওয়া গামছা পরা গ্রামের ছেলের পাশে আপনারা থাকবেন তো। তিনি বিদ্যাসাগরের মাটিতে দাঁড়িয়ে কৃতার্থ বলে জানান।

তিনি আরও বলেন, যে নন্দীগ্রাম ও সিঙ্গুর জমি আন্দোলনে কারও কাছে মাথা নত করেনি। যেমন দেশ প্রাণ বীরেন্দ্র নাথ শাসমল ব্রিটিশদের কাছে মাথা নত করেনি তেমনি মেদিনীপুর কারও কাছে মাথা নত করবে না। ছাত্র রাজনীতি থেকে ঘাটালের সঙ্গে তার সম্পর্ক বলে তিনি জানান। অবশেষে দেখবি জ্বলবি, লুচির মত ফুলবি এমন কটুক্তি করে বিজয়া সাম্মিলনী অনুষ্ঠান শেষ করলেন শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুন: মল্লারপুরে পুলিশ হেফাজতে নাবালকের মৃত্যুতে ডিজি এবং স্বরাষ্ট্রসচিবের কাছে রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের

এই দিন এই অনুষ্ঠানে তার অনুগামী সহ এলাকার বিভিন্ন নেতাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। এক কথায় বলা যেতে পারে দলের কাছ থেকে কিছুটা দূরে গেলেও পুরনো দিনের নেতৃত্বদের মন থেকে মুছে ফেলতে পারেনি পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। প্রায় দশ হাজারের ও বেশি মানুষ বৃহস্পতিবার ওই অনুষ্ঠানে যোগদান করেছিলেন। তবে এলাকার বিধায়ক শংকর দোলাইকে ওই অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।

Related Articles

Back to top button
Close