fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কোভিড হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার আগে উল্লাসে মাতলেন সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীরা

শান্তনু চট্টোপাধ্যায়, রায়গঞ্জ: একঝলক দেখলে মনে হবে কোনো বিয়েবাড়ি বা উৎসবের মুহূর্ত। ব্যাকগ্রাউন্ডে বাজছে জনপ্রিয় হিন্দি নাচের গান। তার সেই গানের সঙ্গে উদ্দাম নেচে চলেছেন বিভিন্ন বয়সের মানুষ। না ভুল ভাঙলো খানিক বাদেই। এই মানুষেরা সবাই রায়গঞ্জ কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। দীর্ঘ কয়েকদিন চিকিৎসার পর মঙ্গলবার সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার আগে মনের আনন্দে কিছুটা “রোগমুক্তির সেলিব্রেশন ” এভাবেই তারা সেরে ফেললেন কোভিড হাসপাতালের ওয়ার্ডের মধ্যেই।
  উল্লেখ্য রাজ্যের অন্যান্য প্রান্তের পাশাপাশি উত্তর দিনাজপুর জেলাতেও প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা। টেস্টের পর প্রয়োজন অনুযায়ী তাদের চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়েছে রায়গঞ্জ কোভিড হাসপাতালে। একদিকে কোভিড ভাইরাসের সংক্রমন অন্যদিকে হাসপাতালে একঘেয়ামী জীবনে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছেন অনেকেই। তার উপর রয়েছে সামাজিক হেনস্থা, পাড়াপ্রতিবেশি দের বাঁকা চোখের চাহনী। তবে হাসপাতালে একই ওয়ার্ডে থাকতে থাকতে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলো অচেনা মানুষগুলোর মধ্যে। অবশেষে চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন অনেকেই। মঙ্গলবার রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতাল থেকে এমনই পনেরো জন সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীকে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।  এই খবর জানা মাত্রই খুশীতে মেতে ওঠেন তারা। ছুটির আগে তাই শুরু হয়ে যায় বিদায় সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান।
মোবাইলে গান চালিয়ে ওয়ার্ডের মধ্যেই বাঁধনহীন উল্লাসে মেতে ওঠেন তারা। বয়স সেখানে কোনো বাঁধা নয়। কোমড় দুলিয়ে অনেককেই নাচতে দেখা যায় এদিন। ছুটি হওয়ার পরেও একে অপরকে জড়িয়ে ধরে শুভেচ্ছা জানান তারা। হাসপাতালের বাইরে বেড়িয়েও ছুটির আনন্দে নাচতে শুরু করেন তারা। তাদের বক্তব্য,” তীব্র আতংক নিয়েই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলাম আমরা। মানসিক অবসাদে ভুগছিলাম। কিন্তু চিকিৎসার পর আমরা সকলেই সুস্থ। ছুটির মুহূর্ত কে স্মরণীয় করে রাখতে আনন্দে সকলে মিলে নাচানাচি করলাম। তারা আরো জানিয়েছেন,  কোভিড মানেই জীবন শেষ নয়। তবে সকলেই নির্দিষ্ট স্বাস্থবিধি মেনে চলুন। কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই সকলের সহযোগিতা য় জয় পেয়েছি আমরা।

Related Articles

Back to top button
Close