fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফের খুলল আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত পাটুলি ভাসমান বাজার

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের অত্যধুনিক ভাবে বসানো হল পাটুলি ভাসমান বাজার। শনিবার এই ভাসমান বাজারের ফিতে কেটে উদ্বোধন করেন পুরমন্ত্রী তথা পুর প্রশাসক মণ্ডলীর মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। লকডাউন ও আম্ফানের জেরে একে বারে বিদ্ধ্স্ত হয়ে পড়েছিল বাজার টি। এর ফলে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের সমস্যা তৈরি হয়েছিল। এক দিকে এলাকার মানুষকে যেমন দৈনন্দিন সমগ্রি কিনতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছিল। তেমনি ক্রেতাদেরও আর্থিক ক্ষয় ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। তবে নতুনভাবে বাজারটি খুলে যাওয়ায় আবারো আশার আলো দেখছেন বিক্রেতারা।

প্রায় বছর তিনেক আগে খুলে যাওয়া ভাসমান বাজারকে কেএমডিএ’র উদ্যোগে ঢেলে সাজানো হয়েছে। আগে যেমন জলাশয় এর মধ্যে নৌকাগুলি ভাসমান ছিল এখন সেগুলিকে কোথাও কাঠের গুড়ি কোথাও লোহার বিম দিয়ে আটকে দেওয়া হয়েছে। যাতে আগের মত ঝড় ঝাপটা নৌকো গুলি নষ্ট না হয়ে যায়। এর আগে আমফানের সময় দেখা গিয়েছিল নৌকাগুলি ঝড়ের দাপটে প্রায় ভগ্নস্তূপে পরিণত হয়েছিল। অন্যদিকে প্রতিটি নৌকার মাথায় পার্মানেন্ট শেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে সামান্য রোদ ঝড় জল থেকে বিক্রেতারা ক্ষতিগ্রস্থ না হয়। যার ফলে নতুন করে বাজারটি আবারও খুলতে অনেকটা সময় লাগলো।

অন্যদিকে জলাশয় সংরক্ষণের জন্য বিশেষ ধরনের ঘাস ব্যবহার করা হয়েছে। যা জলের মধ্যে থাকা নোংরা কে টেনে নেবে। এছাড়াও জলাশয় এর মাঝ বরাবর একটি ফোয়ারা চালু রাখা হয়েছে। যাতে জল পরিস্রুত থাকে এবং ঠান্ডা জল বাতাসের সঙ্গে মিশে বাতাবরণ কে ঠান্ডা রাখে। এছাড়াও পুরো বাজার চত্বরটি আলো দিয়ে ঘিরে এক অনন্য রূপ দেওয়া হয়েছে। এ এক অনন্য পরিবেশে পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে বাজার করার সুযোগ করে দেয়া হলো শুধুমাত্র বাইপাস সংলগ্ন এলাকার মানুষের জন্য নয়। এখানে বাজার করতে আসতে পারেন অন্যান্য বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষজন। কমবেশি প্রায় ৫০ টি নৌকার ওপর এখানে বাজার গড়ে তোলা হয়েছে। আলু পিয়াজ সবজি থেকে শুরু করে মাছ এছাড়াও দৈনন্দিন জীবনের নানা উপকরণের সামগ্রী নিয়ে তৈরি হয়েছে এ বাজারটি। অনেকে আবার বিনোদনের জন্য বাজারটিতে আসেন পরিবারকে নিয়ে।

এদিন ফিরহাদ হাকিম ভাসমান বাজার উদ্বোধন করতে এসে বলেন, ‘এই বাজারটি যেভাবে গড়ে তোলা হল সেটা আগামী দিনে কলকাতার হকারদের কাছে একটা মাইন্ডসেট হয়ে উঠতে পারে। কারণ ইতিমধ্যেই শহরজুড়ে যেভাবে নোংরা প্লাস্টিক দিয়ে মুড়ে দোকানপাট চালানো হচ্ছে সেটা কলকাতার সৌন্দর্য নষ্ট করছে। তাই আমরা এ বিষয়ে হকার ভাইদের সঙ্গে কথা বলব। তাদের সঙ্গে কথা বলে কলকাতার সৌন্দর্যায়ন যাতে নষ্ট না হয় সেদিকে নজর রেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করব। যেভাবে বাইরের দেশে ছাতা লাগিয়ে হকারি করা হয় সেই পদ্ধতিতেই কলকাতাতেও যাতে হকারি করা যায় সেটাও আমরা তাদের জানাবো।’

Related Articles

Back to top button
Close