fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রাস্তা মেরামতের দাবিতে পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝাড়গ্রাম: রাস্তা মেরামতের দাবিতে পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ স্থানীয় বাসিন্দাদের। দীর্ঘ সময় সময় ধরে তালা বন্ধ থাকার পর ঝাড়্গ্রাম থানার পুলিশ গিয়ে আশ্বাস দেওয়ার পর পঞ্চায়েত অফিসের তালা খুলে দেন বাসিন্দারা। তবে আগামী সাত দিনের মধ্যে রাস্তা মেরামত না হলে আবার তালা ঝোলাবেন বলে হুঁশিয়ারী দিয়েছেন।

শুক্রবার সকালে এই ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়্গ্রাম ব্লকের চন্দ্রী গ্রাম পঞ্চায়েতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে চন্দ্রী চক থেকে ভাদড়িকাটা পর্যন্ত প্রায় চার কিমি মোরাম রাস্তার একেবারে বেহাল দশা। এমনিতেই ওই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করা যায় না। তার উপরে সামন্য বৃষ্টি হলে খানাখন্দ জলে পরিপূর্ণ হয়ে যায়। যার ফলে গ্রামের কোনও অসুস্থ ব্যক্তি বা অন্তঃস্বত্বা মহিলাকে হাসপাতালে নিয়ে আসতে খুব সমস্যা পড়তে হয়।

জানা গিয়েছে ওই রাস্তা প্রায় দশ থেকে বারোটি গ্রামের মানুষজনদের যাতায়াতের একমাত্র পথ। ওই দিকে জেলা শহর, ব্লক, পঞ্চায়েত অফিস, ব্যাঙ্ক, সহ বিভিন্ন কাজে শহরে আসা যাওয়ার জন্য ওই রাস্তাটির উপর তাদের নির্ভর করতে হয়। বাসিন্দাদের দাবি সাত দিনের মধ্যে রাস্তা মেরামত না করা হলে আবারও পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝোলানা হবে।

স্থানীয় বাসিন্দা বাদল সরেন, সুধীর সরেনেরা বলেন, ” গত তিন বছর ধরে এই রাস্তাটির মেরামত করেনি প্রশাসন। আমরা স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত, প্রধান থেকে শুরু করে ব্লক অফিসে একাধিকবার জানিয়েছি কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি। আমাদের কথায় কেউ কর্ণপাত করেনি। লক ডাউনের আগেও গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি কিন্তু তাতেও কোনও কাজের কাজ হয়নি। তাই একপ্রকার বাধ্য হয়ে আমরা পঞ্চায়েত অফিসে তালা বন্ধ করেছিলাম। এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করতে আমদের খুব অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয়।”

এবিষয়ে চন্দ্রী গ্রাম পঞ্চায়েয়েতের প্রধান মামনী সিং বলেন, “এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করা যায়। এই রাস্তা ঠিক করার মতো আমাদের আর্থিক ক্ষমতা নেই। আমরা ব্লক এবং জেলা পারিষদকে জানিয়েছি। সেখান থেকেও কোনও সাড়া পাইনি। রাস্তা মেরামত না হলে গ্রামের বাসিন্দারা সাত দিন পরে আবার তালা ঝোলাবেন বলে জানিয়েছেন। সেক্ষেত্রে আমার।কিছু করার থাকবে না।”

Related Articles

Back to top button
Close