fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নদী ভাঙনে ভিটে হারিয়ে অন্যত্র আশ্রয়ের খোঁজে মানুষ

মিল্টন পাল, মালদা: অকাল ভাঙনে ভিটে হারাচ্ছে গ্রামবাসীরা। উপায় না পেয়ে গঙ্গার করাল গ্রাস থেকে বাঁচতে বসত বাড়ি ভেঙে আশ্রয় নিচ্ছে অন্যত্র। মালদা জেলার কালিয়াচক ৩ ব্লকের পার চকবাহাদুরপুরে শুরু হয়েছে গঙ্গা নদীর ভাঙন। আর এমন ভাঙন আগে দেখেনি গঙ্গা তীরবর্তী গ্রামের বাসিন্দারা। ফলে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে গঙ্গা তীরবর্তী এলাকার কয়েকশো পরিবার।

বৃহস্পতিবার রাত থেকে যেহারে ভাঙন শুরু হয়েছে তাতে ভয়ে এলাকাবাসী বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র যেতে শুরু করেছে। বর্ষার শুরুতেই গঙ্গার ভাঙন, কালিয়াচক-‌৩ ব্লকের মানুষ কোনও দিন দেখেনি। সাধারণত জলস্ফীতির সঙ্গে গঙ্গার ভাঙন যেমন শুরু হয়, তেমনই জল কমার সময় বর্ষার শেষের দিকেও ভাঙন দেখা যায়। কিন্তু এবার বর্ষার শুরুতেই যে ভয়াবহ রূপ তা দেখে এলাকাবাসীদের আশঙ্কা এবার ব্যাপক ভাঙন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দু’‌দিনের মধ্যে প্রায় ৩ থেকে ৪ বিঘা জমি তলিয়ে গেছে গঙ্গায়। তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা ঘর ছাড়তে শুরু করেছেন। মঙ্গলবার রাত থেকে ভাঙন শুরু হয়েছে।বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর তীব্রতা ছিল অনেক বেশি। মূলত গঙ্গারপারের জমিতে ভুট্টা চাষ করে থাকেন এলাকাবাসী। সেই চাষের জমি এখন গঙ্গাগর্ভে। এখন বসতজমিতে ভাঙনের আশঙ্কা দেখা দিতে শুরু করেছে। বাসিন্দারা বাড়িঘর ভাঙতে শুরু করেছেন। তাঁরা প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে চকবাহাদুরপুরের দিকে যেতে শুরু করেছেন। সকাল থেকে ব্যস্ত ঘরের সামগ্রী সরানোর কাজে।

আরও পড়ুন:সেনাদের মনোবল বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী মোদির এই লাদাখ সফর অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ: রাজনাথ সিং

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, বছর তিনেক আগে বাড়িগুলো তৈরি করি। যেহারে ভাঙন শুরু হয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে রাতের মধ্যেই বসতবাড়িটি গঙ্গায় তলিয়ে যেতে পারে। খুব কষ্ট হচ্ছে। নিজের ভিটেমাটি চলে যাচ্ছে গঙ্গায়। চোখের সামনে দেখতে হচ্ছে।’‌

পার চকবাহাদুরপুরের পঞ্চায়েত সদস্য অর্জুন মন্ডল বলেন,‘‌বর্ষার শুরুতে ভাঙন আমরা এই প্রথম দেখছি। জলস্ফীতির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভাঙন হয়ে থাকে। কিন্তু এবার যেহারে শুরুতেই ভাঙন শুরু হয়েছে, তাতে এবার ব্যাপক ভাঙন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

খবর পেয়ে এলাকা পরিদর্শনে যান বিডিও গৌতম দত্ত। এলাকার মানুষদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। গৌতমবাবু জানিয়েছেন, ক্ষয়-ক্ষতি পরিমাণ স্থানীয় পঞ্চায়েতকে তালিকাভুক্ত করা কথা বলা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close