fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মাস্ক বাড়িতে রেখে রাস্তায় মানুষ! মালদায় এইভাবে চলল লকডাউন… আটক শতাধিক

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: করোনা আবহে চেন ভাঙার জন্য সেপ্টেম্বর মাসের লকডাউনের প্রথম দিনে ভিন্ন চিত্র দেখা গেল মালদা জেলায়। বাজার খোলা রেখে মাস্কহীন ভাবে দেদার চলল বাজার। সকালের দিকে মালদা থানার সাহাপুর এলাকায় বাজার খোলা রেখে দেদার চলল বাজার। এছাড়াও ইংরেজবাজারের বাগবাড়ি এলাকায় বাজার খোলা হয়। পাশাপাশি ইংরেজবাজার পুরাতন মালদা, চাঁচল, গাজোল, রতুয়া সহ একাধিক এলাকায় লকডাউন অমান্য করার অভিযোগে গাড়ি সহ শতাধিক অমান্যকারীদের আটক করেছে পুলিশ।
স্বাস্থ্য দফতর সুত্রে খবর, জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫২৪২জন। সুস্থ হয়েছে ৪৯১৪জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৯জনের। যদিও করোনা মোকাবিলায় তৎপর স্বাস্থ্য দফতর। এই পরিস্থিতে করোনা সংক্রমণ আটকাতে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য। সেই মত সেপ্টেম্বর মাসের লকডাউনের এদিন ছিল প্রথম দিন।

মালদা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে লকডাউন মোকাবেলায় শহরের প্রবেশ পথে বিভিন্ন জায়গায় নাকা চেকিং করা হয়। কিন্তু সেইভাবে লকডাউনের মধ্যে বাইরে বেরোনো মানুষজন ও যানবাহনের প্রয়োজনীয় তথ্য ও কাগজপত্র দেখালে তবে শহরে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে। অন্যথায় তাদেরকে ঘুরিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

যদিও মালদা থানা এলাকায় ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। সেখানে সাহাপুর এলাকায় সকাল বেলায় বাজার খোলা ছিল।কার্যত করোনা আবহে লক ডাউনকে উপেক্ষা করেই সেই বাজারে ক্রেতা বিক্রেতাদের বাজার করতে দেখা গেল। অন্যদিকে মালদা ৩৪নম্বর জাতীয় সড়কের ওপর পুলিশের নাকা চেকিং চলে।সেখানেও অবৈধ ভাবে অযথা শহরে প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না দেখাতে পারে বেশ কিছু গাড়ি ও মানুষকে আটক করেছে পুলিশ। শহর ও জেলা জুড়ে পুলিশকে লকডাউন মোকাবেলায় লাঠি হাতে নামতে হয়।যারা লকডাউনকে উপেক্ষা করে বেআইনি ভাবে রাস্তায় চলাফেরা করছিল সেই সমস্ত চলাচলকারি মানুষকে পুলিশ আটকায় ও তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও নেওয়া হয়। এমনকী যারা মাক্সহীন ভাবে অযথা বাইরে বের হয়েছিল পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়।

যদিও করোনা মোকাবিলায় এদিন ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদা পৌরসভা এলাকায় সেই ভাবে পুলিশি তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়নি। অন্যান্য লকডাউনের দিনে দুই পৌরসভা সহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় পুলিশের তৎপরতা দেখা গিয়েছিল। সেপ্টেম্বর মাসের সোমবারের লকডাউনে সেই রকম করাকরি দেখা যায়নি পুলিশের পক্ষ থেকে এমনকী থানার পুলিশ দের পথে নামতে দেখা যায়নি।ইতিমধ্যেই করোনা আবহে চেন ভাঙতে মানুষ সচেতন হওয়ায় শহরের রাস্তাঘাট ফাঁকা ছিল। শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবা খোলা রাখা হয়েছিল।দুই পুরসভায় বাজার খোলার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেই বাজার তুলে দেয়।

পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানান, করোনা মোকাবিলায় মালদা জেলায় পুলিশ যথেষ্ট ছিল। শহরে নাকা চেকিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। লকডাউন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জেলাজুড়ে পুলিশ তৎপর হয়ে কাজ করছে।

Related Articles

Back to top button
Close