fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারে আবাসিকদের বিক্ষোভ

সুমিত কার্যী, আলিপুরদুয়ার: কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারে দীর্ঘ সময় কাটানোর জেরে বিক্ষোভ। কেউ কাটিয়ে ফেলেছেন ২১ দিন। আবার কারো ২৫ দিন পার হয়ে গেছে। সকলের রিপোর্ট নেগেটিভ। কিন্তু তবুও কোয়ারাইন্টাইন সেন্টার থেকে ছাড়া হচ্ছে না আবাসিকদের। ফলে কোয়ারাইন্টাইন সেন্টার থেকে ছেড়ে দেওয়ার দাবীতে শনিবার বিক্ষোভে দেখালেন আলিপুরদুয়ার ১ নম্বর ব্লকের শিলতোর্ষা ব্রীজের কাছে সরকারি পি টি টি আই কলেজের কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারের আবাসিকরা।

এই প্রসঙ্গে, জানা গিয়েছে প্রায় ৪০ জন আবাসিক দীর্ঘদিন থেকে এই কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারে রয়েছেন। জেলার বাইরে থেকে কিছু মানুষ কর্মসুত্রে এই জেলায় এসেও এই কোয়ারাইন্টাইন রয়েছেন। কিন্তু সকলের অভিযোগ ২৫ দিন পার হয়ে যাওয়ার পরেও তাদের এই কোয়ারাইন্টাইন সেন্টার থেকে ছাড়া হচ্ছে না। এদিন সকালেই আবাসিকরা কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারের ভেতরে বিক্ষোভ শুরু করেন। চেয়ার টেবিল ছূড়তে থাকেন। রীতিমতো বেডিংপত্র গুছিয়ে বেশ কিছু আবাসিক এই সেন্টারের দেওয়াল টপকে বাইরে বাড়ি যাওয়ার জন্য উদ্যত হন।

আবাসিক সুষ্মিতা মাইতি বলেন, ” আমার আট বছরের ছোট্ট ছেলে রয়েছে। তাকে নিয়ে এই কেন্দ্রে ২৫ দিন থেকে আছি। ২৯ মে একজনের পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে। তার পরেও ১৪ দিন পার হয়ে গেল। সকলের রিপোর্ট নেগেটিভ। তবুও আমাদের ছাড়া হচ্ছে না। বলা হচ্ছে ৫ জুন আরো একজনের রিপোর্ট পজেটিভ হয়েছে। কিন্তু এখানে ব্যাবসা চলছে। কায়েমি স্বার্থে পরিকল্পনা করে আমাদের কোয়ারাইন্টাইনে রাখা হচ্ছে। আমরা বিচার চাই।”

এদিকে বিষয়টি নিয়ে জেলার উপমুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ২ সুবর্ণ গোস্বামির সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ” সরকারি নিয়ম অনুযায়ি কোনও কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারে একজনের রিপোর্ট পজেটিভ আসলে ওই কেন্দ্রের সকলকে আরো ১৪ দিন থাকতে হবে। সকলের আবার টেস্ট করতে হবে। ওই কোয়ারাইন্টাইন সেন্টারে সম্প্রতি একজনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। সকলের আবার টেস্ট করে নেগেটিভ এলেই ছাড়া যাবে। টেস্টের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কাউকেই ছাড়া যাবে না। আমরা আবাসিকদের বিষয়টি বোঝাচ্ছি।”এখন এই ধরণেরই একটা অদ্ভুত পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে ওই কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের অবস্থা।

Related Articles

Back to top button
Close