fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

২১-র বিধানসভায় মানুষ তাঁকে রাজনৈতিক শরণার্থী বানিয়ে দেবে, মমতাকে কটাক্ষ বিজেপির চাণক্য-র

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে টার্গেট স্থির করল বঙ্গ বিজেপি। বছর ঘুরলেই বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে দলের রাজ্য শিবিরকে তাতিয়ে দিতে এদিন থেকেই মাঠে নেমে পড়লেন অমিত শাহ। ভার্চুয়ালর‍্যালিতে দিল্লির মঞ্চ থেকে উপস্থিত অমিত শাহ, দেবশ্রী চৌধুরী, বাবুল সুপ্রিয়র মতো হেভিওয়েট নেতারা। পশ্চিমবঙ্গের মঞ্চে হাজির রাহুল সিনহা, মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষের মতো রাজ্যের শীর্ষ নেতৃত্ব। সভায় সকলকে আমন্ত্রন জানিয়ে সভা শুরু করেন সায়ন্তন বসু । সভার শুরুতে শাহ বলেন, বিজেপি শুধু রাজনীতি করে না জনসংযোগ করে।দেশজুড়ে আমরা জনসংযোগ করব। ক্ষমতায় এসে শুধু নালিশ করি না আমরা। বাংলায় ১৮টা আসন আমাদের অন্যতম সাফল্য। মোদি সরকার ৬ বছরে দিশা দেখিয়েছে। পরিবর্তন এলে সবাইকে মনে রাখা হবে। বাংলা পরিবর্তনে সবাই সামিল হন। আমরা সোনার বাংলা তৈরি করতে চাই। বাংলার মানুষ মোদিজির আহ্বানে সাড়া দিয়েছে।

১১ বছরের বাংলার কাজের ক্ষতিয়ান দিন, মমতাঁকে সরাসরি প্রশ্ন অমিতের। মোদির জনপ্রিয়তা ভয় পান মমতাদিদি। মমতাদিদি আপনি আমাকে বাংলা সামলাতে বলেছিলেন, আপনার এই ইচ্ছা দ্রুর পুরণ করবে বাংলার মানুষ। মতুয়া সমাজ নিয়ে রাজনীতি কেন? সিএএ-বিরোধিতায় ফল ভুগতে হবে। বাংলা দেশে শরণার্থী নাগরিকত্বে বাঁধা কেন? পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরানোর জন্য উদ্যোগী কেন্দ্রীয়.সরকার। কিন্তু বাংলায় শ্রমিকদের ফিরতে বাধা দেওয়া হচ্ছে।শ্রমিক ট্রেনকে করোনা এক্সপ্রেস ট্রেন বলেছিলেন, শ্রমিকদের কাটা ঘায়ে নুনের ছিটে। আপনি শ্রমিকদের অপমান করেছেন। জাতীয় সঙ্গীত লেখা হয়েছিল এই বাংলাতে, এখন বাংলায় বোমার আওয়াজ সোনা যায়, রবীন্দ্র সঙ্গীত নয়। বামেদের থেকেও খারাপ অবস্থা নিয়ে গেছে তৃণমূল। বাংলায় তোষণের রাজনীতি চলছে।

আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা পাঠান, আমরা ২দিনে পাঠিয়ে দেব। সাড়ে ৯ কোটি কৃষককে ৭২ হাজার কোটি টাকা তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছে। কেন গরীব কৃষকদের বঞ্চিত করছেন? রাজনৈতিক বিরোধীতায় এদের বঞ্চিত করবেন না। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস হওয়ায় বিরোধিতায় নামেন মমতাদি। মতুয়া সমাজ, নমঃশূদ্র, বাংলাদেশ থেকে যে ভাইবোনেরা এসেছেন, তাঁদের সাথে কী বিরোধ? শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিরোধিতা কেন? সিএএ বিরোধিতার দাম চুকাতে হবে মমতাদিকে।বিধানসভা ভোটে বুঝতে পারতে মমতা, মানুষ তাঁকে রাজনৈতিক শরণার্থী বানিয়ে দেবে। আমরা গড়ব সোনার বাংলায় ।  বামের সুযোগ দিয়েছে, তৃণমূলকেও সুযোগ দিয়েছে, আমাদের বাংলায় সুযোগ দিন, তারপর দেখুন কোথায় নিয়ে যায়।

আরও পড়ুন: এতদিন লুকিয়ে থেকে এখন রাজনীতি করতে আসছেন, অমিতকে কটাক্ষ সেলিমের

আয়ুষ্মান ভারত নিয়ে রাজনীতি কেন? আয়ুষ্মান প্রকল্প বাংলায় চালু করতে দেয়নি মমতা দিদি। বাংলার গরীব মানুষ কি প্রকল্প পেতে পারেন না? আয়ুষ্মান ভারতে ৫০ কোটি ভারতীয় উপকৃত। ৫ লাখের স্বাস্থ্যবিমা। ১ কোটি ভারতীয়ের অস্ত্রোপচার হয়েছে বিনামূল্যে।৮ কোটি গরিব ঘরে সিলিন্ডার দিয়েছে মোদি সরকার। আড়াই কোটি ঘরে বিদ্যুৎ উজ্জ্বলা প্রকল্পে। বাংলায় বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী শপথ নিলেই, বাংলায় আয়ুষ্মান ভারত।

সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের মাধ্যমে দুনিয়ায় সন্দেশ, ভারতীয় জওয়ানদের জীবন এত সস্তা নয়। তাদের সাথে ‘ছেড়খানির’ দাম ‘ভারী’ পড়বে। আতঙ্কবাদে জিরো টলারেন্স বার্তা। দেশকে অখণ্ডতার জন্য ৩৭০ অনুচ্ছেদ, ৩৫এ অনুচ্ছেদের বিলোপ ঘটানো হয়েছে। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির স্বপ্ন ছিল এটা। তিনি কাশ্মীর আন্দোলনেই নিজেেকে বলিদান দিয়েছিলেন। ১৪ বছর বয়সে যখন কার্যকর্তা হয়েছি, তখন থেকেই এই বলিদানকে স্মরণ করে স্বপ্ন দেখেছি কাশ্মীরের অখণ্ডতা।  সঠিক যুক্তিতে অযোধ্যা রামমন্দির মামলার ফয়সলা হয়েছে। ট্রাস্ট গঠন করেছে মোদী সরকার। আর কিছুদিনের মধ্যেই আকাশ উঁচু রামমন্দির তৈরি হবে। তিন তালাককে ‘তালাক’ দিয়েছে মোদি সরকার। মোদির নেতৃত্বে করোনা মহামারীর বিরুদ্ধে লড়ছেন ১৩০ কোটি ভারতীয়। করোনা মোকাবিলায় গরিব কল্যাণ যোজনা মোদী সরকারের। করোনা ও আমফানে মৃতদের প্রণাম। বিজেপি কার্যকর্তা যাঁরা হিংসায় প্রাণ হারিয়েছেন, তাদের প্রণাম। করোনা যোদ্ধাদের প্রণাম।

 

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close