fbpx
কলকাতাহেডলাইন

আপনি চোখ রাঙালেও মানুষ নতজানু হয়ে আপনার কথা মেনে নেবে না: সূর্যকান্ত

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আপনি যা খুশি তাই বলবেন। চোখ রাঙাবেন। আর মানুষ নতজানু হয়ে তা মেনে নেবে, সেটা আর চলবে না। রবিবার যাদবপুরের নব নগরে শ্রমজীবী ক্যালন্টিনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করতে গিয়ে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এই হুঁশিয়ারিই দিলেন সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। লকডাউনের প্রথম দিন থেকেই যাদবপুরে প্রতিদিন কয়েক’শ মানুষকে রান্না করা খাবার দিচ্ছে বাম ছাত্র যুবরা। এর পাশাপাশি আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষের কথা মাথায় রেখে রবিবার থেকে চালু হয়েছে বামপন্থীদের শ্রমজীবী ক‍্যান্টিন। গরিব মানুষ মাত্র কুড়ি টাকার বিনিময়ে এই ক‍্যান্টিন থেকে দুপুরের খাবার বছরভর সংগ্রহ করতে পারবেন। সিপিএম নেতৃত্বের দাবি, এই ক‍্যান্টিন মূলত বর্তমানে আর্থিক সঙ্কটে পড়া অসহায় মানুষের জন‍্যই চালু হয়েছে। তবে, যারা নুন‍্যতম ২০ টাকা দিতে পারবেন না তাদের জন‍্য বিনামূল্যে খাবার দেওয়ারও পরিকল্পনা রয়েছে।

রবিবার এই ক্যান্টিনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সরাসরি তোপ দাগেন সূর্যকান্ত মিশ্র। প্রশাসন ছাড়া আর কেউ ত্রাণ দিতে পারবে না বলে মুখ্যমন্ত্রী দুদিন আগে যে কথা ঘোষণা করেন তার সূত্র ধরেই এদিন রীতিমতো চ্যালেঞ্জের সুরে সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ আটকাতে কার্যত চুড়ান্ত ব্যর্থ রাজ্য এবং কেন্দ্রের সরকার। সঠিক পরিকল্পনার অভাবের কারণেই এই পরিস্থিতি। এখনও সময় আছে সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ করুন। মানুষকে বাঁচান।

একদিকে সংক্রমণ অন্যদিকে গরীব মধ্যবিত্ত শ্রমজীবী মানুষের জীবধ জীবিকায় নেমে এসেছে এক নিদারুণ সংকট। এমন সংকট স্বাধীন ভারতে কোন সময় নেমে আসেনি। রাজ্যের সরকার এই সংকট মোকাবিলার আশু করনীয় কাজ ছেড়ে ঘৃণ্য রাজনীতি চালাচ্ছে। মানুষের জীবন যন্ত্রণা লাঘবের লড়াইকে দমাতে চাইছে। ত্রাণ বিলি নিয়েও জারি করা হচ্ছে ফতোয়া। মানুষের এই সংকটে মানুষের পাশে থেকে মানুষকে সঙ্গে নিয়ে নিত্যদিন যে কাজ বামপন্থীরা করে চলেছেন দিকে দিকে সে কাজে বাধা দিলে মানুষ চুপ থাকবেন না। মানুষকে ক্ষ্যাপালে তার দাম দিতে হবে। মানুষ কিন্তু নতজানু হয়ে আপনার কথা আর শুনবে না। তাই আপনি যে কাজ সরকারে থেকেও পারছেন না, আমারা সেই কাজ করছি। আমাদের করতে দিন। বাধা দেবেন না। আর বাধা দিলেও সে বাধা আমরা মানবো না। মানুষের স্বার্থে মানুষকে সঙ্গে নিয়েই সেই কাজ করে যাবো।’

আরও পড়ুন: আজ থেকে খুলছে রেস্তোরাঁ-মল, সরকারি দফতরে ৭০% হাজিরা

ত্রাণের টাকা লুঠ হচ্ছে এই অভিযোগে ফের সরব হয়ে এদিনের অনুষ্ঠান থেকে এলাকার বিধায়কদের তথা বামপরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘বিপর্যয়ে ,এই সংকট পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে থেকে বামপন্থীদের সাধ্যতমতো নিত্যেদিনের কাজ দেখছেন রাজ্যের মানুষ। একাজে সহযোগিতার হাতও বাড়িয়ে দিচ্ছেন বহু মানুষ। রাজ্যের সরকার ত্রাণের নামে যে অর্থ পাচ্ছে সে অর্থ যাতে লুঠের ভান্ডারে পরিণত না করতে পারে তৃণমূল, সে বিষয়ে মানুষকে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে।’  রাজ্যসভার সাংসদ তথা সি পিএম নেতা বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, ‘সরকার ব্যর্থ। মানুষের জীবন যন্ত্রণা লাঘবের আশু করনীয় কাজ করা হচ্ছে না।এই সংকটের দিনে তাই মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতার নিরিখেই এলাকায় এলাকায় মানুষের স্বার্থে কাজ করে চলেছেন বামপন্থীরা।’

Related Articles

Back to top button
Close