fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাজ করে যাও মন্ত্রী থাকব কি থাকব না, তা মানুষ বলে দেবে, তোপ ফিরহাদের

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: মন্ত্রী থাকব কি থাকব না তা মানুষ জবাব দেবে। পাল্টা তোপ দাগলেন পুরমন্ত্রী তথা পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। সোমবার পুরসভার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয় বিজেপির প্রচারের বিরুদ্ধে পাল্টা মুখ খুললেন ফিরহাদ। তিনি বলেন, ‘কাজ করে যাও মানুষের জন্য মানুষ তোমায় দেখে নেবে।’ এর আগে সংবাদ মাধ্যমে বিজেপি জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা ফিরহাদ হাকিমের কড়া সমালোচনা করে পদত্যাগের দাবি জানান। পাশাপাশি রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকেও এদিন রাজ্যজুড়ে শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে নানা ইস্যুতে প্রচার চালানো হয়। তাই এদিন ফিরহাদ হাকিম পুরসভায় বিরোধীদের প্রচারে বিরুদ্ধে এমনটাই জানালেন।

এ প্রসঙ্গে ফিরহাদ আরও বলেন, ‘বিরোধীদের প্রচারকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি না। মানুষ দেখে বিপদের সময়ে পাশে কে থাকে। কিছু মানুষ মিডিয়া নিয়ে বাঁচতে চাইছে। আসলে তাদের নিজ নিজ এলাকায় রাজনৈতিক মাটি নেই। তাই টেম্পোরারি নিজের এলাকায় পপুলার হওয়ার চেষ্টা করছে।’

পাশাপাশি চুঁচুড়া পুরসভায় কর্মী নিয়োগ বাতিল করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্থানীয় সাংসদ কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে আমরা জানতে পেরেছি পুরনো নিয়োগে একাধিক দুর্নীতি আছে। তাই আমরা নতুন করে কর্মী নিয়োগ করার জন্য পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করব। তাই আপাতত ওখানকার নিয়োগ বন্ধ রেখেছি।

অন্যদিকে এদিন ফিরহাদ হাকিম ডেঙ্গু নিয়ে একগুচ্ছ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তিনি জানান, গত বছরের মতো এ বছরও খালি জায়গা গুলিকে পরিষ্কার করা, পুকুর বা জলাশয়ের ওপর বাড়তি নজরদারি রাখা হবে। হেলথ ডিপার্টমেন্টকে নোটিশ করা হবে সে গুলোকে পরিষ্কার রাখার জন্য। পাশাপাশি সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইড ছড়ানো হবে বেশি মাত্রায়। এছাড়াও জলাশয় গুলিতে গাপ্পি মাছের চারা ছাড়ানো হবে প্রায় ৫০ লক্ষ্য। এছাড়াও শহরের বসতে চলেছে ইয়েলো বিন। কোভিড পরিস্থিতে শহরে যত্র তত্র ফেলে দেওয়া হচ্ছে ব্যবহৃত মাস্ক। যা সাফাই কর্মীদের সহ শহরবাসীকে সংক্রমণের দিকে ঠেলে দিতে পারে। তাই এই বিন বসানো হচ্ছে এই নির্দিষ্ট বিনে মাস্ক ও পরিত্যক্ত গ্লাভস ফেলতে হবে বলে তিনি নির্দেশ দেন পুর প্রশাসক।

খুব শীঘ্রই শহরে প্রায় ২০০০ টি ইয়েলো বিন বসানো হবে পাশাপাশি এই দিনগুলি থেকে নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করে নিয়ে যাওয়ার জন্য বিশেষ কিছু গাড়িও কেনা হবে বলে জানান ফিরহাদ হাকিম। পরিত্যক্ত মাস্ক ও গ্লাভস থেকে শহরকে পরিষ্কার রাখতে ইঞ্জিনিয়ার পরিবেশ দফতর কঞ্জারভেন্সি দফতর ও বায়ো ইঞ্জিনিয়ারিং দফতরকে নিয়ে একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে বলে জানান পুরো প্রশাসক।

 

Related Articles

Back to top button
Close