fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পিকের টিম টাকার থলি নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে, কাজ হচ্ছে না কটাক্ষ দিলীপের

পঙ্কজ বিশ্বাস, দমদম: এবার তোপের মুখে তৃণমূলের ‘ভোটগুরু’ প্রশান্ত কিশোর। বিরাটির আলিপুরের চা চক্র থেকে প্রশান্ত কিশোরের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, “পিকের টিম মোবাইল ফোন আর টাকার থলি নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রথমে কাজ হচ্ছিল কিন্তু এখন আর হচ্ছে না। সবাই বুঝে গেছে। তৃণমূলে কি লোকের অভাব! আর গিয়ে কিইবা হবে। কোথায় জায়গা দেবে। এখন আর ডেকেও লোক খুঁজে পাচ্ছে না পিকে”।

প্রসঙ্গত বুধবার খড়গপুরেও এই অভিযোগ করেন মেদিনীপুরের সাংসদ। পিকের পাশাপাশি পুলিশ দিয়ে ভয় দেখানোর অভিযোগও করেছেন। তিনি বলেন, ‘ শুধু এই জেলায় নয়, গোটা রাজ্যে পুলিশ দিয়ে ভয় দেখিয়ে বিজেপিকে ভাঙার চেষ্টা চলছে। পুলিশ ফোনে হুমকি দিচ্ছে, বলছে চলে আসুন, নাহলে গাঁজার কেস দিয়ে দেবো। আর দলের কিছু লোক ভয় পেয়ে চলে যাচ্ছেন। তবে এঁরা সবাই ফিরে আসবেন।

বৃহস্পতিবার বিরাটিতে চায় পে চর্চা কার্যত জনসভায় পরিণত হয়।জনপ্লাবন দেখে  দিলীপ বাবু তৃণমূল সুপ্রিমোর বিরুদ্ধে সুর চড়ান। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নিযে তিনি বলেন, ‘যিনি বাম সরকারকে হটিয়ে দিলেন তাঁর সাড়ে নয় বছরে কৃতকর্মের জেরে কনফিডেন্সের অভাব হয়েছে। বিহার থেকে লোক ডেকে বুদ্ধি ভাড়া নিতে হচ্ছে। আগে বিহার থেকে মানুষ আসতেন এখানে রুজির টানে কলকারখানায় কাজ করতে। এখন আসছে বুদ্ধি বিতরণ করতে। বাঙালির কি বুদ্ধির অভাব পড়েছে। আসলে উনি এত খারাপ কাজ করেছেন যে মাথা কাজ করছে না। আমরা সময় আসলে সব হিসাব বুঝিয়ে দেবো কড়ায় গন্ডায়। দিদিমণি আপনি তৈরি থাকুন আর সাঙ্গপাঙ্গদের বলে দিন তৈরি থাকতে। সঠিক সময়ে জনগণ সব হিসেব বুঝে নেবে। মানুষ অনেক আশা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মুখ্যমন্ত্রী করেছিল। বাংলায় মহিলা মুখ্যমন্ত্রী আসার পর মহিলাদের দুর্গতি সবথেকে বেশি বেড়েছে। ‘

আরও পড়ুন: ভিড় নিয়ন্ত্রণের প্রশ্নে ফের বৈঠক শুক্রবার, মেট্রো পরিষেবা চালু হতে পারে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি

রাজ্যের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি ক্রমশ ক্ষয়িষ্ণু হচ্ছে অভিযোগ বিরোধীদের। দিলীপ বাবুর এপ্রসঙ্গে উক্তি ” বাংলায় মহিলাদের জ্যান্ত পুড়িয়ে মারা হচ্ছে। বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করা হচ্ছে। ৬০ বছরের মহিলা পর্যন্ত এই রাজ্যে সুরক্ষিত নয়। সামনে দুর্গা পুজো, মায়ের কাছে প্রার্থনা করব অন্ততপক্ষে এ রাজ্যের মহিলারা যেন সুরক্ষিত থাকে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আর কোনোও আশা নেই। উনি সাড়ে ৯ বছরে কিছু করতে পারেননি”। এদিন ৭২ জন যুবক দিলীপ ঘোষের হাত থেকে বিজেপির পতাকা নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন। যাঁরা যোগ দিলেন তাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই তৃণমূল থেকে এসেছেন দাবি বিজেপির। এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির উত্তর শহরতলী জেলা সভাপতি কিশোর কর, সম্পাদক চণ্ডীচরণ রায়, প্রবীর মুখোপাধ্যায়, গোপাল দাস প্রমূখ।

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close