fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নিখোঁজ দুই ছাত্রীকে ভিন রাজ্য থেকে ফিরিয়ে আনলো পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: নিখোঁজ দুই ছাত্রীকে অবশেষে ভিন রাজ্য থেকে ফিরিয়ে আনলো পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। বসিহাট মহাকুমার বসিরহাট থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের মেরুদন্ডী গ্রামের ঘটনা । গত তিন মাস আগে অর্থাৎ মার্চের ৩ তারিখে নিজের গ্রাম থেকে স্কুলে যাওয়ার পথে নিখোঁজ হয়ে যায় দুই ছাত্রী। তাদের বাবা আব্দুল সামাদ গাজী ও সঞ্জয় সরদার, স্কুল কর্তৃপক্ষ ও আত্মীয়-স্বজনের কাছে খোঁজ নিয়ে জানা যায় তারা সেখানে যায়নি। পরের দিন ৪ মার্চ ওই এলাকার যুবকের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ দায়ের করে বসিরহাট থানায়।

জানা যায় দুই ছাত্রীকে প্রেমের প্রলোভনে দুই পাচারকারি পিন্টু মোল্লা ও দীপক দত্ত তাদেরকে ফুসলিয়ে নিয়ে গিয়ে ভিন রাজ্যে মোটা টাকায় বিক্রি করার চেষ্টা করেছিল। পাশাপাশি নিষিদ্ধ পল্লীতে দেহ ব্যবসার কাজে লাগানোর চেষ্টা করা হয় । এবং তাদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায় ঘরের মধ্যে রেখে। এই কথা জানতে পেরে দুই ছাত্রী যে বাড়িতে রাখা হয়েছিল সেই বাড়ির এক সহৃদয় ব্যক্তি তাদের মোবাইল ফোন দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল। তার পর ছাত্রীরা নিজের বাড়িতে ফোন করে ফোনের কল লিস্ট থেকে জানতে পারা যায় তাদের ঠিকানা গুজরাটের জম্মুর এলাকায় রয়েছে।

এর পরে পরিবারের লোকজন তেঘরিয়া ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল মুভমেন্ট টি আই এস এম প‍্যাট সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে ওই সংগঠনের সদস্য সুফিয়া খাতুন, বিকাশ দাস, রবিউল ইসলাম, সম্পাদক ফারুক মোল্লা এই সংগঠন থেকে গুজরাটের মিশন মুক্তি সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পাশাপাশি গুজরাট পুলিশকে পুরো বিষয়টা জানালে রাজ্য পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগে বসিরহাট পুলিশ সুপার কঙ্কয় প্রসাদ বারুই এর উদ্যোগে গুজরাট ও বাংলা পুলিশের যৌথ উদ্যোগে অপহৃত দুই নাবালিকা ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

পাচারকারী পিন্টু মোল্লা, দীপক দত্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ওই দুই ছাত্রীর বাড়ি ফেরায় স্বস্তির হাওয়া বইছে মেরুদন্ডী গ্রামে। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, তাদের মেয়েকে পুনরায় পড়াশোনা করতে পারে তার জন্য সব রকম ব্যবস্থা নেবেন। এই সংগঠন তাদের পাশে থাকবে সব রকম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দুই ছাত্রী আইনি সহায়তা যাতে পাই এবং সামাজিক পুনর্বাসন সহায়তায় বদ্ধপরিকর।

Related Articles

Back to top button
Close