fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ঘোলায় যুবক খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য, তদন্তে পুলিশ 

অলোক কুমার ঘোষ, ব্যারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগনার ঘোলা থানার অন্তর্গত ১ নম্বর বিলকান্ডা গ্রাম পঞ্চায়েতের অধীনস্থ উত্তর যোগেন্দ্রনগরে রাস্তার ধারে ক্ষতবিক্ষত স্ল্যাপ চাপা দেওয়া অবস্থায় এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল। মৃত যুবকের নাম জানা গেছে লক্ষিকান্ত বিশ্বাস (৩২) । সে পেশায় রাজমিস্ত্রীর কাজ করত বলে জানা গেছে ।
স্থানীয় বাসিন্দারা এদিন সকালে তার রক্তাক্ত মৃতদেহ দেখতে পায় । রবিবার সকালে রাস্তার ধারে সিমেন্টের স্ন্যাপ চাপা অবস্থায় রক্তাক্ত ওই দেহটি দীর্ঘক্ষণ পড়ে ছিল । স্থানীয় বাসিন্দারা ওই দৃশ্য দেখে সাথে সাথে খবর দেয় স্থানীয় ঘোলা থানাতে । পুলিশ এসে উদ্ধার করে ওই মৃতদেহটি। জানা যায় মৃত ওই ব্যক্তির নাম লক্ষীকান্ত বিশ্বাস, সে ঘোলা থানা অঞ্চলের যোগেন্দ্র নগর এলাকার বাসিন্দা। এই ঘটনায় সাথে সাথেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে যোগেন্দ্র নগর অঞ্চলজুড়ে। স্থানীয় বাসিন্দা দিলীপ বিশ্বাস জানান, “মৃত লক্ষীকান্ত পেশায় রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন । তবে তার কোনও শত্রু ছিল বলে জানা নেই। এমনকি রাস্তায় চলাচলের সময় কারো সাথে খুব একটা কথা বলত না সে।”
মৃতের দাদা নিহার বিশ্বাস জানালেন, “গতকাল রাতে আমার সাথে দেখা করে ও দিদির বাড়ি যাবে বলে চলে যায় । যাওয়ার পথেই বেশ কয়েকজন মিলে ওকে মারধর করলে ও ঘটনাস্থলেই মারা যায় । একা কারুর পক্ষে ভারী সিমেন্টের স্ল্যাপ চাপা দিয়ে খুন করা সম্ভব নয় । এই ঘটনায় ৪/৫ জন জড়িত থাকতে পারে বলে মনে হচ্ছে। তবে কি কারণে ওর সঙ্গে এই ঘটনা ঘটেছে তা বুঝতে পারছি না । ওর কারুর সঙ্গে ঝগড়া ঝামেলা ছিল না । ওর মৃতদেহের মুখে, মাথায় আঘাতের চিহ্ন ছিল ।”
ঘোলা থানার পুলিশ মৃত যুবকের দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠিয়েছে । এই ঘটনায় ঘোলা থানার পুলিশ এখনো পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি । পুলিশ জানিয়েছে, গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে । মৃতের পরিবারের সদস্যরা এই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছে পুলিশের কাছে । পুলিশ জানিয়েছে, ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে তবে স্পষ্ট করে বলা যাবে কিভাবে ওই যুবককে হত্যা করা হয়েছে । প্রাথমিক ভাবে পুলিশের ধারনা, ব্যাক্তিগত কোন শত্রুতার কারণে ওই যুবককে স্থানীয় দুষ্কৃতীরা হত্যা করে থাকতে পারে।

Related Articles

Back to top button
Close