fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মালদায় বিক্ষোভকারী সাফাইকর্মীদের লাঠিচার্জ পুলিশের, পরিস্থিতি ঘিরে উত্তপ্ত মালদহ

মিল্টন পাল,মালদা: মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে কাজ বন্ধ রেখে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন সাফাইকর্মীরা। জেলাশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেওয়ার জন্য জমায়েত হয়েছিলেন। মালদা মেডিকেল কলেজ-সহ শহরের সাফাই কর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করল ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। আহত এক মহিলা সাফাই কর্মী সহ বেশ কয়েকজন। আটক এক। এরপরই সাফাই কর্মীরা ঘটনার প্রতিবাদে এক বিশাল মিছিল শহর পরিক্রমা করে জেলা প্রশাসনিক ভবনে বিক্ষোভ দেখায়। প্রশাসনের আস্বাসে বিক্ষোভ তুলে নে।জানা গিয়েছে,স্থায়ীকরণের দাবিতে অক্টোবর মাসে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে বিক্ষোভ করছিলেন সাফাই কর্মীরা।তারা জানায় আমাদের গত একমাস আগে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হঠাৎ করেই ৪২ জন সাফাই কর্মীকে ছাঁটাই করেছিল। এরপর অস্থায়ী কর্মীরা কর্ম বিরত শুরু করে। সেই সময় কতৃপক্ষের আস্বাসে বিক্ষোভ আন্দোলন স্থগিত রাখে। সোমবার মালদা বৃন্দাবনী ময়দানে কয়েকশো সাফাই কর্মী অস্থায়ী কর্মীদের স্থায়ী করন,বেতন বৃদ্ধি,ছাঁটাই কর্মী পূর্ণ নিয়োগের দাবিতে জমায়েত হয়। এরপরই খবর পেয়ে ইংরেছবাজার থানার পুলিশ এসে সাফাই কর্মীদের ওপর ব্যাপক লাঠিচার্য করে। এরপরই তারা শহর পরিক্রমা করে প্রশাসনিক ভবনে বিক্ষোভ দেখায় আর পুলিশের এই লাঠিচার্জকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে তৃণমূল-বিজেপি বাদানুবাদ।

উত্তর মালদার বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু বলেন,এই করোনা আবহের মধ্যে যখন এই সাফাই কর্মীরা করোনা যোদ্ধা তখন তাদের ছাঁটাই করে দেওয়া হল। তারা যখন কর্মবিরতি শুরু করল সেই সময়ের মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ জানালেও তারা তাদের বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে। কিন্তু বাস্তবে তা কার্যকর হলো না। রুজি রুটির তাগিদে যখন তারা একত্রিত হয়ে আন্দোলন শুরু করল তখন তাদের হঠাৎ পুলিশের লাঠিচার্জ করল। এই রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল নেতার হয়ে গিয়েছে। একদিন আগেই বীরভূমে দেখা গেল তৃণমূলের সমাবেশে উপচে পড়া ভিড় আর সেখানে তৃণমূল কর্মীদের সাথে পুলিশ কর্মীরা বসে বসে খাচ্ছে। সেই সময় কোন লাঠি চার্জ হয় না। এই করোনা পরিস্থিতিতে শাসকদল মিছিল মিটিং করছে সেই সময় লাঠি চার্জ হয় না।

একদিন আগে রবিবার মালদা টাউন হলে তৃণমূল তাদের কর্মী সম্মেলন করল সেখানেও ছিল ভিড় সেখানে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিল না। আর এই গরীব মানুষগুলোকে এসে মারধর করল। এই সরকারের আমলে কেউ নিরাপদ নেই। আমরা এদের পাশে আছি আগামী দিনে রাজ্যে আমাদের সরকার আসলে আমরা ওদেরকে স্থায়ী করে দেব তৃণমূলের মালদা জেলার কডিনেটর দুলাল সরকার বলেন,কি কারণে ঘটনা ঘটেছে তা জানা নেই। বিস্তারিত খোঁজ নিয়ে তারপরে বলতে পারব। যদিও গোটা ঘটনা নিয়ে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও জেলা পুলিশের কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

 

 

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close