fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রায়গঞ্জে বিজেপির ধর্নামঞ্চ ভাঙলো পুলিশ, গ্রেফতার রাজু বন্দোপাধ্যায় সহ আরও,বৃহত্তর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

নিজস্ব সংবাদদাতা, রায়গঞ্জ: হেমতাবাদের দলীয় বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায় ও চোপড়ার নির্যাতিতার  রহস্যমৃত্যুর তদন্তের দাবীতে আয়োজিত উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপির ধর্নামঞ্চ ভেঙে দিল পুলিশ। রায়গঞ্জে কর্মসূচীর দ্বিতীয় দিনে কর্মসূচীতে যোগ দিতে আসা দলের রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দোপাধ্যায় সহ বেশ কয়েকজন জেলা নেতাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। গ্রেফতার করা হয় স্টেজ ডেকোরেটার্স এর মালিককেও। পাশাপাশি বিজেপির পার্টি অফিসের ভেতর ঢুকে মহিলা কর্মীদের হেনস্থার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

দলের রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দোপাধ্যায় বলেন,” তৃণমূলের নেতা, কর্মীরা লকডাউন উপেক্ষা করে সর্বত্র ঘুরে বেড়াচ্ছেন,শহীদ দিবসের সভা করছেন,পুলিশ চুপচাপ অথচ বিজেপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে পুলিশ বাঁধা দিচ্ছে। পুলিশ শাসকদলের কাছে বিক্রি হয়ে গিয়েছে। বুধবার এই ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে রায়গঞ্জ শহরে। ঘটনার প্রতিবাদে জেলাজুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচীর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব।

উল্লেখ্য মঙ্গলবার থেকে রায়গঞ্জে অবস্থিত জেলা বিজেপির কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় মঞ্চ বেঁধে তিনদিনের ধর্না কর্মসূচী শুরু করেছিলো বিজেপি। কর্মসূচীর দ্বিতীয় দিনে ধর্নামঞ্চে যোগ দিতে আসেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দোপাধ্যায়। জেলা কার্যালয়ে পৌঁছানোর আগেই তৎপর হয়ে ওঠে পুলিশ। ডিএস পি প্রসাদ প্রধান ও রায়গঞ্জ থানার আই সি সুরজ থাপার নেতৃত্বে সভাস্থলে পৌঁছে যায় বিশাল পুলিশ বাহিনী। ভেঙে দেওয়া হয় ধর্নামঞ্চ। এরপর ঘটনার প্রতিবাদে পথসভা করার জন্য রাজু বন্দোপাধ্যায় পার্টি অফিস থেকে বেড়োলো পথ আটকায় পুলিশ। পুলিশের সঙ্গে শুরু হয়ে যায় প্রবল বাকবিতণ্ডা। এরপরেই রাজু বন্দোপাধ্যায় সহ অন্যান্য জেলা নেতৃত্ব রাস্তায় বসে পড়েন। শেষপর্যন্ত তাদের গ্রেপ্তার করে টেনে হিঁচড়ে পুলিশ ভ্যানে তুলে থানায় নিয়ে আসা হয়। এসময় আচমকাই জেলা বিজেপি কার্যালয়ে ঢুকে পড়ে বিজেপি কর্মীদের গ্রেফতারের চেষ্টা করে পুলিশ। এনিয়ে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভের মুখে পড়ে শেষ পর্যন্ত পার্টি অফিস থেকে বেড়িয়ে যায় পুলিশ।

আরও পড়ুন: চোপড়ার ধর্ষণ কান্ডের প্রতিবাদে পুরুলিয়ার বিধানসভা এলাকায় বিজেপির যুব মোর্চার বিক্ষোভ

রাজু বাবু অভিযোগ করে বলেন, তৃণমূলের মন্ত্রীদের জন্য এক আইন আর বিজেপির জন্য আলাদা আইন হতে পারেনা। তৃণমূল মন্ত্রী গৌতম দেব অবাধে ঘুরে বেড়ান অথচ বিজেপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে পুলিশ বাঁধা দিচ্ছে। রাজ্যের শাসকদলের বশ্যতা স্বীকার করেছে পুলিশ। আচমকা বিজেপির জেলা কার্যালয়ে পুলিশের হানা ও বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দোপাধ্যায় কে গ্রেফতার করা প্রসঙ্গে বিজেপির উত্তর দিনাজপুর জেলা সহ সভাপতি নিমাই কবিরাজ বলেন, শাসক দল ও তার সরকার  চোপড়া কান্ড নিয়ে বিজেপির আন্দোলনকে ভয় পেয়েছে। তাই রাজু বন্দোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে চোপড়ার কিশোরী ধর্ষণ ও খুনের বিরুদ্ধে বিজেপির আন্দোলনকে থামাতে চাইছে।  তাঁর অভিযোগ রাজ্যের পুলিশ তৃণমূল কংগ্রেসের দলদাসে পরিনত হয়েছে। মহিলা পুলিশ দিয়ে বিজেপির জেলা কার্যালয়ে থাকা মহিলা মোর্চার নেত্রীদের শারীরিক হেনস্থা করা হয়েছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে জেলাজুড়ে আন্দোলনে নামবে বিজেপি।

Related Articles

Back to top button
Close