fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ইমিউনিটি বাড়াতে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকা মানুষকে হেলথ ড্রিঙ্কস দিচ্ছে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, দিনহাটা: করোনা ভাইরাসের আক্রমণে আক্রান্তের সংখ্যা যখন প্রতিদিন বেড়ে চলছে তখন এই রোগকে প্রতিহত করতে মানুষের ইমিউনিটি পাওয়ার বৃদ্ধি করার কথা বারে বারে তুলে ধরছেন চিকিৎসকরা। একজন মানুষের ইমিউনিটি পাওয়ার বেশি থাকলে এই রোগ মোকাবিলা করা অনেকটাই সম্ভব।

সেদিকে লক্ষ্য রেখে দিনহাটা থানার পুলিশের পক্ষ থেকে দিনহাটা হিমঘর সংলগ্ন কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকা ৬৭ জন মানুষকে গত কয়েকদিন ধরে হেলথ ড্রিঙ্কস দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে বিকালে এই হেলথ ড্রিঙ্কস দেওয়া হলেও রবিবার সকালে দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্তের নেতৃত্বে পুলিশ ওই কোয়ারেন্টাইনে সেন্টারে গিয়ে তাদের হাতে হেলথ ড্রিঙ্কস তুলে দেন। গত কয়েকদিন ধরে দিনহাটা থানার পুলিশের পক্ষ থেকে নিয়ম করে হেলথ ড্রিঙ্কস দেওয়ায় পুলিশের ভূমিকার প্রশংসা করেন অনেকেই। মানুষকে রক্ষা করার পাশাপাশি করোনা মোকাবিলায় পুলিশ যেভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তাকে সাধুবাদ জানান সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে মারণ এই রোগ কে প্রতিহত করতে মানুষের শরীরে ইমিউনিটি পাওয়ার বাড়ানো বিশেষ জরুরি। স্বাস্থ্য দফতর থেকেও একথা বারেবারে প্রচার করা হচ্ছে। পাশাপাশি চিকিৎসকরাও বারে বারে একথা তুলে ধরছেন।

আইএমএ দিনহাটা শাখার সম্পাদক ডা: বিদ্যুৎ কমল সাহা বলেন, এই সময় একজন মানুষের শরীরে ইমিউনিটি পাওয়ার বৃদ্ধি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। ইমিউনিটি পাওয়ার বেশি থাকলে এই রোগ প্রতিহত করা দ্রুত সম্ভব।

দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এই ভাইরাস থেকে মানুষকে রক্ষা করতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি সচেতন থাকতে হবে। এছাড়াও একজন মানুষের ইমিউনিটি পাওয়ার যাতে বৃদ্ধি করা যায় তার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। পুলিশের পক্ষ থেকে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে চিকিৎসকরা তাকে সাধুবাদ জানান।

দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসক উজ্জ্বল আচার্য জানান সাবধানতা আর স্বাস্থ্য সচেতনতাই একমাত্র পথ করোনা প্রতিহত করার। তিনি বলেন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে পৃথিবীতে। এই রোগ গুলির মধ্যে কিছু বিদায় নিয়েছে আবার কিছু রোগ থেকে গিয়েছে। করোনা একটি ভাইরাস ঘটিত রোগ।

ভ্যাকসিন না আবিষ্কার হওয়া পর্যন্ত রোগটি পৃথিবী থেকে বিদায় নেবে এ কথা বলা যাচ্ছে না। তবে শরীরে ইমিউনিটি পাওয়ার ঠিক থাকলে এই রোগ প্রতিহত করার ক্ষেত্রে অনেকটাই সম্ভব হবে। এর জন্য প্রোটিন জাতীয় খাবার খেতে হবে। দিনহাটা থানার পুলিশের পক্ষ থেকে শহর সংলগ্ন হিমঘর এলাকায় কোয়রান্টিন সেন্টারে যারা রয়েছে এমন ৬৭ জন কে যেভাবে গত কয়েকদিন ধরে হেলথ ড্রিঙ্কস দেওয়া হচ্ছে তা তাদের ইমিউনিটি পাওয়ার অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে।

দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত বলেন, শহরের বলরামপুর রোড হিমঘর সংলগ্ন কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ৬৭ জন কোভিড পজিটিভ মানুষের ইমিউনিটি পাওয়ার বৃদ্ধির লক্ষ্যে তারা গত কয়েকদিন ধরে প্রোটিন জাতীয় খাবার ও ড্রিঙ্কস দিচ্ছেন। এটা আগামী আরও কয়েকদিন দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলেও তিনি জানান। দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস বলেন, মানুষকে রক্ষা করতে তারা সব দিক দিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

Related Articles

Back to top button
Close