fbpx
আন্তর্জাতিকআমেরিকাহেডলাইন

মার্কিন মুলুকে ফের পুলিশের গুলিতে মৃত্যু কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ফের মার্কিন মুলুকে কৃষ্ণাঙ্গের মৃত্যু। কেনোশা শহরের মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জ্যাকব ব্লেকের উপর পুলিশি বর্বরতার সাম্প্রতিক ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিগত কিছুদিন ধরেই উত্তেজনা রয়েছে আমেরিকায়। কারফিউ ডেকে, অতিরিক্ত পুলিশ নামিয়ে কোনও রকমে বিক্ষোভ দমিয়ে রাখার চেষ্টা করছে পুলিশ। এই উত্তাল সময়ে কোনও কিছুর তোয়াক্কা না-করে আরও এক কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি করে মেরে ফেলল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশ। এ বারের ঘটনা লস অ্যাঞ্জেলেসে। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারিয়েছেন ওই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক ।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী সোমবার বিকেলে বাইসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন কিজি। তখনই তাঁকে আটকায় লস অ্যাঞ্জেলস কাউন্টি শেরিফের প্রতিনিধিরা। বাধা পেয়ে এক প্রতিনিধিকে ঘুষি মারেন ওই কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ। তারপর কিজির কাছ থেকে জামাকাপড়-সহ কিছু সামগ্রী পড়ে যায়। পুলিসের দাবি, প্রতিনিধিরা তখন দেখেন ওই কাপড়ের মধ্যে একটি হ্যান্ডগানও রয়েছে। তারপরেই গুলি চলার ঘটনাটি ঘটে। পুসিসের এও দাবি, ট্রাফিক আইন ভেঙেছিলেন ওই তরুণ।

বন্দুকটি ধরতে যাওয়ার সময় প্রতিনিধিরা গুলি করেছে কিনা এই বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়। তাহলে কি নিরস্ত্র কিজিকেই গুলি করেছে মার্কিন পুলিস? এই প্রশ্নের কোনও উত্তর দিতে পারেননি লেফটেন্যান্ট ব্র্যান্ডন ডিন।

কিজির মৃত্যুর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই শতাধিক আমেরিকাবাসী সেখানে এসে বিক্ষোভ শুরু করেন। তার মধ্যে থেকেই এক মহিলা প্রশ্ন তোলেন, “বিচার ব্যবস্থার কী মানে কি সবাইকে মেরে ফেলা?” ‘আপনারা সবাই যদি আমাদের খুন করতে চান, তা হলে জেল ব্যবস্থা থাকার কী দরকার?’

কেনোসাতে জেকব ব্ল্যাকের পিঠে মোট ৭ বার গুলি চালিয়েছিল মার্কিন পুলিস। তারপরেই আওয়াজ উঠেছিল “ব্ল্যাক লাইভ ম্যাটারস।” জর্জ ফ্লয়েড কাণ্ডের সুপ্ত আগুন ফের হয়ে উঠেছিল দাবানল। এই ঘটনার পর সেই আন্দোলনই আরও শক্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা বিভিন্ন মহলের।

আরও পড়ুন: সংক্রমণের নিরিখে আমেরিকা ও ব্রাজিলের পরেই ভারত, আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭,৬৯, ৫২৪

২৩ অগস্ট মার্কিন পুলিশের গুলিতে উইসকনসিনের কেনোশা শহরে গুরুতর ঘায়েল হন আর এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জ্যাকব ব্লেক। যিনি আর আগের মতো সুস্থ স্বাভাবিক ভাবে হাঁটাচলা করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন তাঁর এক আইনজীবী। পরপর সাতটা গুলিতে ব্লেকের শিরদাঁড়া কয়েক টুকরো করে দেয় ট্রাম্পের পুলিশ। অস্ত্রোপচার হলেও এই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক স্বাভাবকি ভাবে হাঁটা চলা করতে পারবেন না। তিনি পঙ্গু হয়ে গিয়েছেন। ব্লেকের আইনজীবী বেন ক্রাম্প এই দুঃসংবাদ দিয়েছেন ।

রাস্তার ধারে পার্ক করে রাখা তাঁর এসইউভি’র মধ্যে তিন সন্তানকে রেখে, কোনও একটা প্রয়োজনে গিয়েছিলেন। ফিরে এসে গাড়ির দরজা খুলে চালকের আসনে বসার সময়, পুলিশ পিছন থেকে তাঁকে গুলি চালিয়ে দেয়। সন্তানরা চোখের সামনে দেখে পুলিশের গুলিতে নির্দোষ বাবাকে ঘায়েল হতে। সেলফোনে তোলা ঘটনার ভিডিয়ো ক্লিপিংস সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে পড়ায়, সোমবার থেকে ফের অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে আমেরিকা। কেনোশা শহরে কারফিউ জারি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হয়। তার আগে জর্জ ফ্লয়েড নিহত হন মার্কিন পুলিশের অত্যাচারে।

 

Related Articles

Back to top button
Close