fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ক্ষুধার্ত মানুষের পাশে ‘ভোরের আলো’

কানাই সুত্রধর (রাজু) পুঞ্চা: লকডাউনে সব থেকে বেশি ধাক্কা লেগেছে গরিব মানুষগুলোর পেটে। গত কয়েকমাস আগেও গ্রামের অনুন্নত পাড়াগুলোতে মানুষজন অবাধ বিচরণ করেছে। আজ সেখানের চিত্রটা অনেকটা ‘ গ্রাম বাংলার অলস দুপুরের স্তব্ধতার মতোই। কোভিড-19 এর ‘ প্রেমহীন ভালোবাসার ‘ সংক্রমণের ফলে কোটি কোটি মানুষ আজ কর্মহীন।

এই কর্মহীন মানুষগুলোর কাছে যেন-তেন প্রকারে খেয়ে-পড়ে বেঁচে থাকাটাই এখন ‘ সোনার পাথর বাটী ‘ র মতো। রাষ্ট্রসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচীর প্রধান ডেভিড বিয়াসলে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, করোনা আক্রান্ত দেশগুলিতে কার্যত অনাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানুষকে। এই কঠিন সময়ে বিশ্বজুড়ে প্রায় ৮২ কোটি ১০ লক্ষ মানুষ রাত্রে শুতে যাচ্ছেন পেটে খিদে নিয়ে। কর্মহীন, ক্ষুধার্ত মানুষগুলোর পেটের ‘ শব্দহীন ভয়াল আর্তনাদ ‘ পরখ করে তাদের সাহায্য করতে এগিয়ে এলেন ‘ ভোরের আলো ‘ নামে একটি এনজিও।

হিড়বাঁধ রামকৃষ্ণ সারদা সেবাশ্রমের সহযোগিতায় ‘ ভোরের আলো ‘ এনজিও টি গত ২ এপ্রিল মানবাজার(১) ব্লকের কাশিডিশবর পাড়া ও মাকরকেন্দি শবর পাড়া, ৪ এপ্রিল কুদা শবর পাড়া এবং ২৩ এপ্রিল পুঞ্চা ব্লকের লালপাহাড়ি , সরগোড়া, পুঞ্চা বাউরি পাড়া ও মানবাজার(১) ব্লকের বিভিন্ন জায়গায় ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করেন। হিড়বাঁধ রামকৃষ্ণ সারদা সেবাশ্রমের কর্মকর্তারা জানান, এই রকম কার্যক্রম ভবিষ্যতে আরও বেশি করে চলবে।

Related Articles

Back to top button
Close