fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণবিনোদনহেডলাইন

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত আবৃত্তিকার প্রদীপ ঘোষ, শোকবার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: সংস্কৃতি জগতে ফের নেমে এল শোকের ছায়া। প্রয়াত হলেন প্রখ্যাত আবৃত্তিকার প্রদীপ ঘোষ।  সূত্রের খবর, উপসর্গহীন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তাঁর জীবনাবসান হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। অন্যদিকে তাঁর প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকের ছায়া নেমে এসেছে সংস্কৃতি জগতে।

শুক্রবার প্রয়াত হন প্রবাদপ্রতিম আবৃত্তিকার তথা বাচিক শিল্পী প্রদীপ ঘোষ।  জানা গিয়েছে, তাঁর যোধপুর পার্কের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তাঁর প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি শোকবার্তায় লেখেন, ‘বিশিষ্ট আবৃত্তিকার প্রদীপ ঘোষের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। বাচিক শিল্পের জগতে তিনি এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন। পাশাপাশি তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগে যুগ্ম তথ্য অধিকর্তা হিসাবে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করেছেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকার তাঁকে ২০১৭ সালে কাজী সব্যসাচী পুরস্কার প্রদান করে। আমি প্রদীপ ঘোষের পরিবার-পরিজন ও অনুরাগীদের আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।’

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগে যুগ্ম তথ্য অধিকর্তা হিসাবে দক্ষতার সঙ্গে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন প্রদীপ ঘোষ। শিল্প-সংস্কৃতির আঙিনায় তাঁর ছিল স্বচ্ছন্দ বিচরণ। রাজ্য সরকার ২০১৭ সালে তাঁকে কাজী সব্যসাচী পুরস্কার প্রদান করে।
নজরুল পুত্র কাজী সব্যসাচীর সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নিয়ে বহু কবিতা পাঠ করেছেন প্রদীপ ঘোষ। কাজী নজরুল ইসলামের ‘আমার কৈফিয়ৎ’ বা বুদ্ধদেব বসুর ‘জোনাকি’-র মতো কবিতা প্রদীপ ঘোষের কন্ঠে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। এদিন প্রদীপ ঘোষের মৃত্যুর খবরে শোকপ্রকাশ করেছেন ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায়, জগন্নাথ বসু, দেবাশিস বসু ও অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

Related Articles

Back to top button
Close