fbpx
দেশহেডলাইন

কোমায় আচ্ছন্ন রয়েছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির শারীরিক অবস্থা একই রকম। সঙ্কটমুক্ত নন। এখনও রয়েছেন ভেন্টিলেশনেই। এদিন দিল্লির সেনা হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘প্রণব মুখার্জির শারীরিক অবস্থা এখনও সঙ্কটজনক। তবে বর্তমানে তাঁর হৃদ‌্‌যন্ত্রের কাজ, শরীরে রক্ত সঞ্চালন, রক্তচাপ স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে।বিভিন্ন প্যারামিটার স্থিতিশীল থাকলেও তিনি গভীরভাবে কোমায় আচ্ছন্ন রয়েছেন। তাঁকে ভেন্টিলেটর সহায়তায় রাখা হয়েছে।”

রবিবার রাতে দিল্লির বাসভবনে বাখরুমে পড়ে গিয়ে মাথায় চোট পান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। সোমবার তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। তারপরেই তাঁর মাথায় অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন পড়ে। অস্ত্রোপচারের আগে প্রোটকল অনুযায়ী তাঁর করোনা টেস্ট হয়। তাতে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তবে তাঁর শরীরে করোনার কোনও উপসর্গ ছিল না। এদিন চিকিৎসকরা জানান, করোনার কারণে প্রণববাবুর ফুসফুসে কোনও সমস‌্যা ধরা পড়েনি। বৃহস্পতিবার সকালে অভিজিৎ টুইটারে লেখেন, “আমার বাবা প্রণব মুখোপাধ্যায় এখনও বেঁচে আছেন এবং তিনি হিমোডায়নামিক্যালি স্থিতিশীল আছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রখ্যাত সাংবাদিক যে পূর্বাভাস ও ভুয়ো খবর ছড়িয়েছেন তাতে এটা স্পষ্ট যে ভারতের সংবাদমাধ্যম ভুয়ো খবরের কারখানা হয়ে গিয়েছে।” নিজের বিরক্তি চেপে না-রেখে প্রণব কন্যা শর্মিষ্ঠা লিখেছেন, “আমার বাবার সম্পর্কে যে গুজব ছড়ানো হয়েছে তা মিথ্যে। বিশেষত সংবাদমাধ্যমকে অনুরোধ করছি, আমাকে ফোন করবেন না। কারণ হাসপাতাল থেকে খবর পাওয়ার জন্য আমার ফোনটা রাখা দরকার।”

আরও পড়ুন: ‘পুনর্মিলন’ এক ফ্রেমে গেহলট-শচীন, আজ বিধানসভায় অনাস্থা প্রস্তাব আনছে বিজেপি

গত কয়েকদিন ধরেই প্রচার হচ্ছিল যে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই প্রসঙ্গে তাঁর ছেলে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় এবং মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায় সব খবরকে ভুয়ো বলে উল্লেখ করেন। অভিজিৎ জানান যে তাঁর বাবার অবস্থা এখন স্থিতিশীল। অভিজিতই বলছিলেন, রবিবার বাথরুমে পড়ে যাওয়ার আগে পর্যন্ত প্রণববাবু একদম স্বাভাবিক ছিলেন। ”আমার জন্য গ্রাম থেকে একটা কাঁঠাল নিয়ে আসিস।” অসুস্থ হওয়ার সপ্তাহখানেক আগে ছেলে অভিজিতের কাছে আবদার করেছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। অভিজিত্ মুখার্জি তখন কলকাতায়। তিনি আবার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে কাঁঠাল নিয়ে বাবার কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন। এক কোয়া কাঁঠাল খেয়ে হাসি ফুটেছিল ভারতীয় রাজনীতির চাণক্যের মুখে। অভিজিত্ মুখার্জি বলছিলেন, ”আমি ২৫ কেজির কাঁঠাল নিয়ে দিল্লি গিয়েছিলাম। বাবা এক টুকরোই খেয়েছিল। বাবার তো ডায়াবেটিস আছে। তখন অবশ্য বাবা অসুস্থ ছিল না। তার সপ্তাহখানেক পরই বাবা অসুস্থ হয়।”

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close