fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

দীপাবলিতে সেনাদের মাঝখানে দাঁড়িয়ে সন্ত্রাস দমন প্রসঙ্গে সরব প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক:  প্রতি বছরের রীতি রেওয়াজ এইবারেও বজায় রাখলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। দীপাবলির আনন্দ ভাগ করে  নিলেন সেনা জওয়ানদের নিয়ে। আজ এই বিশেষ দিনে তাকে দেখা গেল কার্গিলে সেনা জওয়ানদের  মাঝখানে। কার্গিল পৌঁছে সেনা জওয়ানদের মধ্যে তিনি মিষ্টি বিতরণ করেন। সকলের সঙ্গে ভাগ করে নেন দীপাবলির শুভেচ্ছা।

কার্গিলের মাটিতে দাঁড়িয়ে সন্ত্রাস  প্রসঙ্গে বার্তা দেন মোদী। তিনি বলেন,  সন্ত্রাস দমন সম্ভব করেছে কার্গিল। সেনাদের উদ্দেশে মোদী বলেন, ‘আপনারা আমাকে আপনাদের সঙ্গে কাটানোর সুযোগ করে দিয়েছেন বলে আমি গর্বিত’। আপনারা সীমান্তে প্রহরায় আছেন বলেই, আজ দেশবাসী নিশ্চিন্তে ঘুমোচ্ছে। মোদী বলেন,  ‘কার্গিলের ভূমি থেকে দেশবাসী ও বিশ্বকে দীপাবলির শুভেচ্ছা জানাই।’

‘ পাকিস্তানের সঙ্গে এমন একটাও লড়াই হয়নি, যেখানে কার্গিল বিজয় পতাকা ওড়ায়নি।’

২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই প্রতিটি দীপাবলি সেনা জওয়ানদের সঙ্গে কাটান প্রধানমন্ত্রী৷ গত বছরও জম্মু কাশ্মীরের নওশেরা সীমান্তে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি৷ এ বছরও কার্গিলে পৌঁছে সেনা জওয়ানদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী৷ সেখানে সেনা জওয়ানদের সাহসিকতার প্রশংসা করার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর মুখে উঠে এসেছে তাঁর সরকারের আমলে অর্থনীতির উন্নয়ন, স্টার্ট আপ তৈরি, ইসরোর সাফল্য, দুর্নীতির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ এবং আত্মনির্ভর ভারতের কথা৷ সেনাবাহিনীর প্রশংসা করে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘কার্গিল ভারতীয় সেনার বীরত্বের সাক্ষী৷ আপনারা সীমান্তের প্রহরীর দেশের মজবুতির স্তম্ভ৷

সেনা জওয়ানদের সামনে দেশের অর্থনীতির উন্নতির কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, ‘দেশের অর্থনীতি দশ থেকে পাঁচ নম্বরে পৌঁছেছে৷ আপনাদের মতো যুবা সীমান্ত সামলাচ্ছেন, আর আপনাদের মতোই যুব সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা আশি হাজার স্টার্ট আপ খুলে ফেলেছে৷ দু’ দিন আগে ইসরো একসঙ্গে ৩৬টি নতুন উপগ্রহ মহাকাশে পাঠিয়েছে৷ এসব শুনলে সেনাকর্মীদেরও গর্বে বুকের ছাতি চওড়া হয়ে যাবে৷’

দুর্নীতির বিরুদ্ধেও তাঁর সরকারের কড়া অবস্থানের কথা কার্গিলে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী। মোদীর দাবি,  দুর্নীতিপরায়ণরা যত শক্তিশালী হোক না কেন, কেউ পার পাবে না৷ সন্ত্রাস, নকশাল, চরমপন্থার বিরুদ্ধেও তাঁর সরকার কতটা কড়া  অবস্থান নিয়েছে, তাও তুলে ধরেছেন৷ দাবি করেছেন, দেশেই এখন তৈরি হচ্ছে সেনাবাহিনীর বহু অস্ত্র৷ যে অস্ত্র হাতে যুদ্ধক্ষেত্রে আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবেন দেশের সেনা জওয়ানরা৷

 

Related Articles

Back to top button
Close