fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণবাংলাদেশহেডলাইন

খালেদা জিয়ার ৪ মামলার কার্যক্রম স্থগিতই থাকবে : হাইকোর্ট

যুগশঙ্খ প্রতিবেদন, ঢাকা: বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে করা নাশকতার আরও চার মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ। রবিবার বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

পাঁচ বছর আগে বিএনপি জোটের হরতালের সময় নাশকতার অভিযোগে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ওই মামলাগুলো দায়ের হয়। খালেদার আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, চার মামলায় হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। ফলে ওই মামলাগুলোর কার্যক্রম স্থগিতই থাকবে।নাশকতার অভিযোগে ২০১৫ সালের ৩ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার দারুস সালাম থানায় তিনটি এবং ২৪ জানুয়ারি যাত্রাবাড়ী থানায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়। দারুস সালাম থানার তিন মামলার মধ্যে ২০১৬ সালের ১০ আগস্ট দুটিতে ও অপরটিতে ওই বছরের ৭ সেপ্টেম্বর অভিযোগ আমলে নেয় বিচারিক আদালত। আর যাত্রাবাড়ী থানার মামলায় ২০১৬ সালের ২৫ মে অভিযোগ আমলে নেয়া হয়। আমলে নেয়ার আদেশ চ্যালেঞ্জ করে ২০১৭ সালে হাইকোর্টে পৃথক আবেদন করেন খালেদা জিয়া। এসব আবেদনের শুনানি নিয়ে ২০১৭ সালের ১৩ এপ্রিল হাইকোর্ট রুল দিয়ে মামলার কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ দেন। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করে, যা চেম্বার আদালত হয়ে আজ আপিল বিভাগে শুনানির জন্য ওঠে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ‘এজাহারের কোন মামলায় নাম ছিলো না তার। পরবর্তী পর্যায়ে এবং পুলিশ যেহেতু সরকারের অধীনে সে সময় পুলিশ ওই মামলাগুলোকে তাকে অভিযুক্ত চার্জশীট দিয়েছিলো।’রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, সেসময় বিএনপি নেত্রীর নির্দেশেই জ্বালাও পোড়াও করেন নেতাকর্মীরা। মামলার এফআইআর ও অভিযোগপত্রেও তার নাম রয়েছে। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানান তারা।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘সরকারি সম্পত্তি সরকারি যানবহন এগুলো ক্ষতিসাধন করার যে অভিযোগ এই অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের হয়েছিলো তার বিরুদ্ধে। এবং আমরা যত শীঘ্রই হোক এটা হাইকোর্টে ফিক্সড করে তাড়াতাড়ি শুনানির বন্দোবস্ত করবো।’ দুর্নীতির ৫ মামলা বাদে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আরো ৩১ টি মামলা রয়েছে। যার অধিকাংশই নাশকতা ও মানহানির।

Related Articles

Back to top button
Close