fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

নারুদা-মার্কেজের অনুবাদে বাঙালীর হৃদয় জিতে শার্ল পেরোদের রূপকথায় হারিয়ে গেলেন মানবেন্দ্র

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: শিক্ষা ও সাহিত্য জগতে নক্ষত্র পতন। করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হলেন প্রখ্যাত তুলনামূলক সাহিত্য অনুবাদক মানবেন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গিয়েছে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে আটটা নাগাদ বাইপাসের একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮২। বহুদিন থেকেই বার্ধক্যজনিত কারণে ভুগছিলেন তিনি। কিন্তু গত দুদিন ধরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। ।

সাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক মানবেন্দ্রবাবু ১৯৩৮ সালে সিলেটে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তারপর প্রেসিডেন্সি কলেজ, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, টোরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয় ও পোল্যান্ডের ভাশভি বিশ্ববিদ্যালয়ে তুলনামূলক সাহিত্যে, ভারতীয় নন্দনতত্ত্ব নিয়ে পড়াশোনা। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনামূলক সাহিত্য বিভাগের অধ্যাপক ‌মানবেন্দ্র বন্দোপাধ্যায় অধ্যাপনার পাশাপাশি নিজেকে সঁপেছিলেন অনুবাদের কাজে। ছোটদের জন্য বিদেশি গল্পের বাংলা অনুবাদ থেকে মার্কেজের বঙ্গানুবাদ– তাঁর বিস্তার বহুমুখী। বাংলা সাহিত্যে বিদেশি (‌শুধু ইংরেজি নয়) সাহিত্যরস জুগিয়েছিলেন এই মানুষটিই। এডগার অ্যালেন পো থেকে জুল ভের্ন– বাংলা শিশু সাহিত্যে তাঁর অবদান অনঃস্বীকার্য। শিশু সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি ‘‌খগেন্দ্র মিত্র স্মৃতি পুরস্কার’‌, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ‘‌বিদ্যাসাগর পুরস্কার’ পেয়েছিলেন।‌ পাবলো নেরুদা, লাতিন আমেরিকার উপন্যাস সমূহ, হুয়ান রুলফোর কথাসমগ্র, শার্ল পেরোর রূপকথা, মিরোস্লাভ হলুবেরের কবিতা, নিকানোর পাররার কবিতা, পিটার বিকসেল, একাধিক স্প্যানিশ গল্প ইত্যাদি অনুবাদের জন্য ভারতীয় সাহিত্য অ্যাকাডেমি তাঁকে ‘‌অনুবাদ পুরস্কার’ দিয়েছিল। শুধু অনুবাদই নয়। তিনি মৌলিক রচনার সম্রাট ছিলেন।

মানবেন্দ্র বাবু দীর্ঘদিন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে তুলনামূলক সাহিত্য অধ্যাপনায় নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন। মানবেদ্রবাবুর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ শিক্ষা-সাহিত্যমহল।

 

Related Articles

Back to top button
Close