fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিডিও অফিসের সামনে বিক্ষোভ গ্রামীন সম্পদ কর্মীদের, জমা দিলেন স্মারকলিপি

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা:  রাজ্যে গ্রামীন সম্পদ কর্মীদের সংখ্যা ২৪হাজার ৫০০, উত্তর ২৪ পরগনা জেলায়  ১৮০০, বসিরহাট মহকুমা সংখ্যা ৬০০, হাসনাবাদ ব্লক এ ৯০ জন। লকডাউনের জেরে কর্মহীন হয়ে পড়ছে। এইসব গ্রামীন সম্পদ কর্মীরা প্রতিটি  ব্লকে ডেভেলপমেন্ট অফিসারের আওতায় থাকে। এসব কর্মীরা একদিকে যেমন করোনার থেকে মানুষকে সচেতন করা ।

অন্যদিকে ডেঙ্গু ম্যালেরিয়া চিকনগুনিয়া সহ বিভিন্ন জ্বর এবং বিভিন্ন উপসর্গ নিয়ে,মানুষকে সচেতন করতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষকে প্রচার লিফলেট ব্লিচিং পাউডার সরকারি ভাবে পৌঁছে দেওয়াই কাজ। এই কাজের প্রতিটা কর্মী দৈনিক ১৭৫ টাকা করে মজুরি পেত মাসে মোট সাড়ে তিন হাজার টাকা হতো কিন্তু লকডাউন ও করোনাভাইরাস ফলে একদিকে এই কর্মীদের মাসিক বেতন ঠিকমত পারছে না, অন্যদিকে কাজ ঠিকমতো হচ্ছে না যার ফলে নিজেদের সংসার চালাতে সমস্যায় পড়েছে এই কর্মীরা।

আরও পড়ুন: বিজেপির গণতন্ত্র বাঁচাও ধরনা কর্মসূচী : জনজোয়ারে ভাসলো নদীয়া

সব মিলিয়ে আজ বসিরহাটের হাসনাবাদ ব্লকের বিডিও অরিন্দম মুখার্জির কাছে স্মারকলিপি জমা দেন  বিডিও অফিসে বিক্ষোভ দেখান হাতে প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুন ব্যানার নিয়ে বিধায়ক রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে আজ শুক্রবার দুপুর বারোটা নাগাদ বসিরহাট মহাকুমার গ্রামীন সম্পদ কর্মী সভাপতি ইব্রাহিম গাজী ও সদস্য বাকি বিল্লা গাজী,ফতেমা বিবি,আফরোজা খাতুন, অনুপম বারুই সহ শতাধিক কর্মী  গলায় প্লাকাট বেঁধে, মজুরি মূল্য বৃদ্ধির দাবি এবং প্রত্যেক মাসে সঠিক টাইমে বেতন যাতে পায় ,এই দাবিতে  হাসনাবাদ বিডিও অফিসে শতাধিক গ্রাম সম্পদ কর্মীরা স্মারকলিপি জমা দেন। একদিকে সমস্যায় পড়েছে এই সংগঠনের কর্মীরা অন্যদিকে পরিবারের দৈনন্দিক জীবনে সংসারের ভারারে টান পড়েছে। এর আগে ২৯শে সেপ্টেম্বর বসিরহাট উত্তর বিধানসভার সিপিএমের বিধায়ক রফিকুল ইসলামের পার্টি অফিসের সামনে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি জমা দিয়েছিলেন গ্রামীন সম্পদ কর্মীরা।

Related Articles

Back to top button
Close