fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পুজোর মুখে নেই আশানুরূপ কাজ, হতাশ দর্জিরা

সুকুমার রঞ্জন সরকার, কুমারগ্রাম: পুজোর বাকি মাত্র দু’ সপ্তাহ। প্রতি বছর এই সময় দর্জির দোকান গুলো তে ব্যস্ততা থাকে তুঙ্গে। দোকান মালিক দর্জি ও তার সহকারীরা স্নান খাওয়া ভুলে দিন রাত এক করে ব্যস্ত থাকতেন পোশাক তৈরির কাজে। এবার করোনা আবহে পোশাক বানানোর কাজ প্রায় নেই, ফাঁকা পড়ে আছে দর্জিদের দোকানের তাকগুলো। কুমারগ্রাম ব্লকের সবকটি বাজারে একই অবস্থা দর্জিদের।

 

বারোবিশা, কামাক্ষ্যাগুড়ি, কুমারগ্রাম, খোয়াড়ডাঙ্গা সবকটি বাজারের দর্জিরা আশানুরূপ কাজ না পেয়ে হতাশ। বারোবিশার জগদীশ বর্মন, ধীরেন সরকার, কামাক্ষ্যাগুড়ির বাপী সাহা সহ সকলেই দীর্ঘদিন দর্জির কাজ করছেন। তারা জানান এবার খদ্দেরের ভীড় নেই পোশাক বানানোর জন্য। প্রতি বছর তারা এই সময় নতুন পোশাক বানানোর অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিতেন, এবছর তারা তাকিয়ে থাকছেন কখন খদ্দের আসবে সেই আশায়। লক ডাউনে ব্যবসার হাল খারাপ থাকায় তারা আশা করেছিলেন পুজোর মুখে ভাল ব্যবসা হবে। কিন্তু যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তাতে তারা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। কেন এই পরিস্থিতি জানতে চাইলে তারা বলেন করোনা আবহে লক ডাউনে সাধারন মানুষের আর্থিক ক্ষমতা হ্রাস পেয়েছে, পাশাপাশি রেডিমেড পোশাকের প্রতি আগ্রহ তরুন তরুনীদের টেনে নিয়ে যাচ্ছে শপিং মলে তাই তাদের দোকান গুলোতে ভীড় নেই।

 

কেউ চাইছেন না দর্জির দোকানে গিয়ে পোশাক বানাতে। হতাশ দর্জিরা বলেন তারা ভাবনা চিন্তা করছেন অন্য কোনো বিকল্প পেশা গ্রহনের।

Related Articles

Back to top button
Close