fbpx
দেশহেডলাইন

গালওয়ান ইস্যুতে কেন্দ্রকে ৩ প্রশ্নে বিঁধলেন রাহুল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:   ১৫ জুন গালওয়ানে ভারত-চিন সোনাদের মধ্যে যে জায়গায় সংঘর্ষ হয়েছিল সেখান থেকে অন্তত ২ কিলোমিটার সরে গিয়েছে চিনা সেনা। এর মধ্যেই সীমান্তে উত্তেজনা প্রশমনে ভারত-চিন আলোচনা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন রাহুল গান্ধী। একের পর এক ইস্যু তুলে লাগাতার কেন্দ্রের সমালোচনা করে চলেছেন তিনি। এমনকী, সদ্য লাদাখ থেকে দুই দেশের তরফে যে সেনা প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, সেটা নিয়েও প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন তিনি। প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতির অভিযোগ, এই সেনা প্রত্যাহারের জন্য জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে আপস করতে হয়েছে ভারত সরকারকে। মঙ্গলবার লাদাখ নিয়ে কেন্দ্রকে তিনটি প্রশ্ন করলেন রাহুল। যার পরতে পরতে একটাই ইঙ্গিত, সরকার চিনের সঙ্গে সমঝোতা করার সময় জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে আপস করেছে। প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি টুইটে বলছেন, “জাতীয় স্বার্থ সবসময় শিরোধার্য। আর সরকারের উচিত সেটা রক্ষা করা।”

এরপরই তাঁর প্রশ্ন,  ‘চিনের সঙ্গে আলোচনায় সীমান্তে আগের পরিস্থিতি বজায় রাখার ব্যাপারে কেন চাপ দিল না ভারত? এনিয়ে নিজের অবস্থান থেকে কেন সরে এল ভারত?  গালওয়ান উপত্যকায় চিনের উপস্থিতিতে ভারতের সার্বভৌমত্ব যে ক্ষুন্ন হয়েছে তা নিয়ে কেন কথা তোলেনি ভারত? পাশাপাশি রাহুল এও প্রশ্ন তুলেছেন, ভারতের ভূখণ্ডে গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষের ঘটনার ২০ জওয়ানের মৃত্যু যে স্বাভাবিক তা কীভাবে বলছে চিন। চিনকে কেন এমন সুযোগ দিল কেন্দ্র?’

আরও পড়ুন: মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া, অন্য রাজ্যের ৬টি শহর থেকে এবার পশ্চিমবঙ্গে কমছে ট্রেনের সংখ্যাও

চিনা বিদেশ মন্ত্রকের বিবৃতি শেয়ার করে রাহুল বলেছেন, চিনা বিদেশ মন্ত্রক থেকে বলা হয়েছে, ভুল বা ঠিক যাই হোক না কেন গালওয়ানে যা হয়ে তা স্পষ্ট। নিজেদের দেশের সীমান্ত রক্ষায় সবসময় সচেষ্ট থাকবে চিন। পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় শান্তি ও সুস্থিতি বজায় রাখার ব্যাপারে কাজ করে যাবে। প্রসঙ্গত, এক্ষেত্রে রাহুলের প্রশ্ন চিন তা বিবৃতিতে গালওয়ানের কথা উল্লেখ করলেও ভারত কেন তার উল্লেখ করল না। রাহুল গান্ধী  প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ নীতিকে বারবার প্রশ্নের মুখে ফেলেছেন। রাহুলের অভিযোগ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি চিনের সামনে আত্মসমর্পণ করেছেন। চিন ভারতের জমি দখল করে বসে আছে, অথচ মোদি তা স্বীকার পর্যন্ত করতে চাইছেন না।

প্রধানমন্ত্রীকে ‘ভীতু’ বলে কটাক্ষ করেছেন, আবার কখনও নরেন্দ্র মোদির পরিবর্তে ‘সারেন্ডার মোদি’ বলে তোপ দেগেছেন। এবার দু’দেশের মধ্যে যে শান্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, সেটা নিয়েও প্রশ্ন তুলে দিলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি।

 

Related Articles

Back to top button
Close