fbpx
কলকাতাহেডলাইন

করোনা চিকিৎসার সরঞ্জাম কেনার দুর্নীতি ইস্যুতে কর্মরত বিচারপতির নেতৃত্বে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি রাহুল সিনহার

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা চিকিৎসার সরঞ্জাম কেনায় দুর্নীতির ইস্যুতে শ্বেতপত্র প্রকাশের দাবি আগেই করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। আর এবার বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা দাবি করলেন কর্মরত বিচারপতির নেতৃত্বে এই দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় তদন্ত হোক।’
শনিবার গণেশ পুজোর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ যারা রেশনের চাল চুরি করে, আম্ফানের ত্রাণের সামগ্রী চুরি করে তাদের কাছে এটা নতুন ব্যাপার নয়। করোনার চিকিৎসার সরঞ্জাম কেনার ক্ষেত্রেও তাই বড়মাপের দুর্নীতি হয়েছে। আমি যদি এখন সিবিআই তদন্তের দাবি করি তাহলে দিদিমণি রে রে করে তেড়ে আসবেন। তাই আমি বলছি কলকাতা হাইকোর্টের কোন কর্মরত বিচারপতির নেতৃত্বে এই দুর্নীতির বিচারবিভাগীয় তদন্ত করা হোক। ‘ একইসঙ্গে এই বিষয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশেরও দাবি জানান তিনি।
করোনা চিকিৎসার অব্যবস্থা নিয়েও সরব হলেন তিনি। বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক বলেন, ‘যথেষ্ঠ সংখ্যক টেস্ট হচ্ছে না। গোড়া থেকেই করোনা নিয়ে তথ্য লুকোচ্ছে সরকার। আসলে সরকারি হাসপাতালে যথেষ্ট সংখ্যক শয্যা নেই, পরিকাঠামো নেই। রোগি ভর্তি করবে কোথায়? তাই টেস্ট হচ্ছে না। ভগবান না করুন যা অবস্থা একদিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় পশ্চিমবঙ্গ এক নম্বরে উঠে আসবে।’
প্রসঙ্গত গত কয়েকমাসে করোনা চিকিৎসার জন্য প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার সরঞ্জাম কিনেছে রাজ্য সরকার। ওয়েস্ট বেঙ্গল মেডিক্যাল সার্ভিসেস কর্পোরেশন লিমিটেড এই সরঞ্জামগুলো কিনে থাকে। কিন্তু অল্প সময়ে প্রয়োজনীয় সামগ্রী কেনায় অনেক বেশি সময় লাগে। তাই করোনার সময়ে দ্রুত কেনাকাটা করার জন্য  আলাদা কমিটি গড়া হয়েছিল। কিন্তু নিয়মের বাইরে গিয়ে কেনাকাটা করতে গিয়ে কিছু এজেন্সি থেকে ওষুধ কেনা হয়। যার গুণমান খারাপ ছিল। মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য একথা জানার পর তদন্ত কমিটি গড়ার নির্দেশ দেন। উল্লেখ্য মুখ্যমন্ত্রীর এই পদক্ষেপ খুশি করতে পারেনি রাজ্যপালকে। তাই তিনি টুইটের লিখেছেন, ‘ ধামাচাপা দেওয়া তদন্তের বিশ্বাসযোগ্যতা নেই। ভবিষ্যতের কথা ভেবেই কাজ। কেবলমাত্র স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত অপরাধীদের ধরতে পারবে।’

Related Articles

Back to top button
Close