fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বৃষ্টিতে জলমগ্ন পর্যটন মন্ত্রীর বিধানসভা ক্ষেত্রের বিস্তীর্ন এলাকা, ভোট বয়কটের হুমকি বাসিন্দাদের 

সঞ্জিত সেনগুপ্ত, শিলিগুড়ি : বৃহস্পতিবার শেষ রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত টানা বৃষ্টিতে ভাসলো শিলিগুড়ি শহর ও তার লাগোয়া এলাকা। এই টানা বৃষ্টিতে সবথেকে খারাপ অবস্থা পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবের বিধানসভা ক্ষেত্রের বিস্তীর্ণ এলাকা। জলবন্দী বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষ এদিন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখান। বছরের পর বছর ধরে জন প্রতিনিধিদের মিথ্যা প্রতিশ্রুতির প্রতিবাদে ও দ্রুত এই সমস্যার সমাধানের দাবিতে আগামীতে ভোট বয়কটের হুমকিও দিয়েছেন জলবন্দী হাজার হাজার মানুষ।

শিলিগুড়ি শহর সংলগ্ন আশিঘর থেকে জলেশ্বরী বাজার পর্যন্ত সব বাড়িতেই জল ঢুকে যায়। এদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে নিজেদের জলবন্দী অবস্থায় দেখতে পেয়ে হয়ে যান বাসিন্দারা। এই পরিস্থিতিতে করোনা আতঙ্কের মাঝে বাসিন্দারা অসহায় হয়ে পড়েন। চারদিকে জল জমে যাওয়ার রাস্তাগুরিকে নদী মনে হচ্ছিল। ঘরে বৃষ্টির জল ঢুকে অনেকের বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বহু পরিবারের শোওয়ার ঘরে জল ঢুকে বিছানা ভিজিয়ে গিয়েছে। এদিন সকালে একটু বৃষ্টি থামতেই এলাকাবাসী ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন। হাটু জলে, কোথাও কোমর সমান জলে দাঁড়িয়ে এলাকার বেহাল নিকাশি ব্যবস্থা এবং প্রশাসনিক উদাসীনতা নিয়ে সোচ্চার হন তারা।

ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ী বিধানসভা ক্ষেত্রের ইস্টার্ন বাইপাস সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকার এই পরিণতির জন্য এলাকার বিধায়ক পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেবকে দায়ী করেন বিজেপি-র রাজ্য সাধারণ সম্পাদক রথীন্দ্র বসু। তিনি বলেন, ‘ ১০ বছর ধরে এখানকার বিধায়ক রয়েছেন গৌতম দেব। ভোট নেওয়ার জন্য অনেক প্রতিম্রুতি দিয়েছে তিনি। কিন্তু কোনও কাজই করেননি। একটি ঝোরার জলে প্রতি বছরই এই এরাকা ভাসে। এখানকার মানুষের দাবি মতো তিনি বাঁধ দেওয়ার ব্যবস্থা করেননি। তাই আজ কয়েক ঘণ্টার টানা বৃষ্টিতে এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন। ইস্টার্ন বাইপাস লাগোয়া বসতি এলাকার নিকাশি ব্যবস্থার সংস্কারের ব্যাপারে কোনও কাজই হয়নি। ওনারা গরীবের উন্নয়নের জন্য ভাবেন না। গরীবের রেশন নিয়ে দূর্নীতি করতেই তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীরা ব্যস্ত।’

এদিন এলাকার বাসিন্দারাো প্রায় একই অভিযোগে জন প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন।
শিলিগুড়ি শহরের মধ্যেও নিচু এলাকাগুরিতে জল জমে যায়। দুপুরের পর থেকে শহরের সেই সব জায়গায় জল নামতে শুরু করে। এজন্য পুরসভার বিরুদ্ধে শহরের হাইড্রেনগুলি ঠিকমতো পরিষ্কার না করার অভিযোগ করেছেন জলমগ্ন এলাকার বাসিন্দারা।

Related Articles

Back to top button
Close