fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বৃষ্টিভেজা লকডাউনে গ্রেফতার ৫৪১! ট্র্যাফিক সার্জেন্টকে বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কা দিয়ে ধৃত ২

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: বৃষ্টিভেজা লকডাউনের যুগলবন্দিতে বৃহস্পতিবার কার্যত বনধ পালন করল সারা শহর। চলতি সপ্তাহে সাপ্তাহিক দুদিনের লকডাউনে এদিন ছিল প্রথম দিন। এদিকে লকডাউনের প্রথম দিনেই কলকাতা শহরে বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কায় কাঁকুড়গাছি ক্রসিংয়ে গুরুতর আহত হলেন এক ট্র্যাফিক সার্জেন্ট। ওই ঘটনার জেরে বেহালা ও সরশুনা থেকে গ্রেফতার করা হয় দুজনকে।

প্রসঙ্গত সাপ্তাহিক সম্পূর্ণ লকডাউন সফল করতে ভোর ৬টা থেকেই কলকাতা শহর সহ জেলায় জেলায় সহ কলকাতার রাস্তায় নেমে পড়ে পুলিশ। এ দিন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত লকডাউনের নিয়ম না মানার জন্য মোট ৫৪১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাস্ক না পরার জন্য ২৭০ জনকে আটক করা হয়েছে। রাস্তায় থুতু ফেলার জন্য আটক করা হয়েছে ৩৬ জনকে। আইন না মানার জন্য ১৮ জন গাড়ি চালকের বিরুদ্ধে মামলাও করা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

এদিনে এদিন ভোর ৬ টা ৪৫ মিনিট নাগাদ কাঁকুরগাছি ক্রসিং-এ ট্র্যাফিক সার্জেন্ট বিশ্বজিত্‍ সাহাকে ধাক্কা মারে একটি টয়োটা কোরোলা অলটিস গাড়ি। সকালে ৬.৪৫ নাগাদ একটি টয়োটা কোরোলা অলটিস গাড়িকে বেপরোয়া গতিতে ছুটে আসতে দেখা যায়। সম্পূর্ণ লকডাউনের মধ্যে ওই গাড়ি কেন রাস্তায় বেরিয়েছে তা জানতে গাড়িটিকে দাঁড় করানোর জন্য হাত দেখায় পুলিশ। কিন্তু তাতে দৃষ্টিপাত না করে জোরে বেরিয়ে যায় গাড়িটি।

আরও পড়ুন: রাজ্যে ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ৩১৯৭, মৃত ৫৩, সুস্থ ৩১২৬

তখনই উল্টোডাঙার হাডকো মোড়ে কর্মরত ট্র্যাফিক সার্জেন্ট গাড়িটি সম্পর্কে কাঁকুরগাছিতে কর্তব্যরত ট্র্যাফিক সার্জেন্টকে ওই গাড়িটি সম্পর্কে সতর্ক করেন। কাঁকুরগাছি ক্রসিং-এ কর্তব্যরত ট্র্যাফিক সার্জেন্ট বিশ্বজিত্‍ সাহা গাড়িটিকে আসতে দেখেই এগিয়ে যান। গাড়িটিকে আটকানোর চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ডিউটিতে থাকা ট্র্যাফিক সার্জেন্ট বিশ্বজিত্‍ সাহাকে ধাক্কা মেরে জোরে বেরিয়ে যায় গাড়িটি। ওই গাড়িতে চালকের আসনে ছিলে এক ব্যক্তি ও চালকের পাশের আসনেও একজন ছিলেন।

এই ঘটনায় ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনায় তদন্ত চালিয়ে পুলিশ বেহারা পর্ণশ্রী এবং সরশুনা থানা এলাকা থেকে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতদের মধ্যে আকাশ হালদার। তার বয়স ২৪। বেহালা বীরেন রায় রোডের বাসিন্দা চন্দন হালদারের ছেলে আকাশই গাড়িটি চালাচ্ছিলেন। অপর ধৃত হলেন ৩৩ বছরের তিতাস মিত্র। তাঁর বাবার নাম প্রয়াত চান্দু মিত্র। পর্ণশ্রীর বসুদেবপুর রোডের বাসিন্দা তিতাস। ওই টয়োটা গাড়িটি তাঁরই। ঘটনার সময় চালকের পাসের আসন তিনি বসেছিলেন। ঘাতক গাড়িটিকেও আটক করেছে পুলিশ। ওই ঘটনায় ট্র্যাফিক সার্জেন্ট বিশ্বজিত্‍ সাহার কপালে গুরুতর আঘাত লাগে, প্রচুর রক্তপাত হয় তাঁর। এছাড়া তাঁর কাঁধের হাড় ভেঙে যায় এবং আরও কয়েক জায়গায় আঘাত লাগে। অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিত্‍সাধীন রয়েছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button
Close