fbpx
দেশহেডলাইন

পাইলট যে খেলাটা খেলল সেটা খুব দুর্ভাগ্যজনক, নিরীহ চেহারার আড়ালে পিছন থেকে ছুরি মেরেছে’, তোপ গেহলটের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: রাজস্থানের রাজনৈতিক অন্তর্দ্বন্দ্বের উত্তাপ রাজ্যের তাপমাত্রাকে কয়েক গুন বাড়িয়েছে। এবার নিজের প্রাক্তন ডেপুটিকে নজিরবিহীন আক্রমণ শানালেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। তাঁর অভিযোগ, নিজের নিরীহ চেহারার সুযোগ নিয়ে কংগ্রেসকে পিছন থেকে ছুরি মেরেছেন পাইলট।

সোমবার এক সাংবাদিক বৈঠকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বললেন, ‘শচীন পাইলট যে খেলাটা খেলল সেটা খুব দুর্ভাগ্যজনক। এত নিরীহ চেহারা। কেউ বিশ্বাসই করতে পারেন না, এই লোকটা এমন করতে পারে।” অশোকের দাবি, তিনি বহুদিন ধরেই ধরে ফেলেছিলেন যে সচিন পাইলট তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। আর সেই প্রসঙ্গেই অশোক গেহলটের বার্তা ‘ আমি এখানে সবজি বেচতে আসিনি, আমি মুখ্যমন্ত্রী ‘, ফলে তাঁর পক্ষে এই ষড়যন্ত্র ধরে ফেলা যে বড় কথা নয়, তা অশোক গেহলট বারবার মনে করিয়ে দিয়েছেন।

এবার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ এনে গেহলট বলেন, “বিজেপির সঙ্গে মিলে গত ৬ মাস ধরে কংগ্রেস সরকার ফেলার চেষ্টা করছিল। সাত বছর প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ছিল। কিন্তু কোনো দিন ওর বিরুদ্ধে কেউ কোনো প্রশ্ন তোলেনি। আমরা জানতাম ওর আমলে কোনো কাজ হচ্ছে না। কিন্তু তবু ওকে নিয়ে কোনো প্রশ্ন আমরা করিনি। ভেবেছিলাম প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির এটুকু সম্মান প্রাপ্য। কিন্তু ও আমাদের পিছন থেকে ছুরি মারল। অনেকেই বলছেন গেহলটের এই মন্তব্যের পর একটা জিনিস পরিষ্কার, শচীন পাইলটের কংগ্রেসে ফেরার আর কোনও রাস্তা নেই।

আরও পড়ুন: স্পিকারের সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপ করতে পারে না আদালত, হাইকোর্টে সওয়াল সিংভির

এদিকে পাইলট ও অনুগামীদের বিধায়ক পদ বাতিলের মামলার শুনানি এখনও চলছে। মঙ্গলবার এই মামলার চূড়ান্ত রায়দান। তার আগে কংগ্রেস শিবির দাবি করেছে, রাজস্থানের স্পিকার এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেননি। তিনি নোটিস পাঠিয়েছেন শুধু। এই নোটিসের ভিত্তিতে প্রত্যেক বিধায়কের যুক্তি শোনা হবে। এবং তারপর তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন। আর স্পিকার সিদ্ধান্ত না নেওয়া পর্যন্ত আদালত এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে পারে না।

এরই মধ্যে আবার দুটো বড় ঘটনা ঘটে গিয়েছে মরু রাজনীতিতে। এক, গেহলট শিবিরের এক কংগ্রেস বিধায়ক দাবি করেছেন, শচীন পাইলট তাঁকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য ৩৫ কোটি টাকার টোপ দিয়েছিলেন। যাতে রেগে আগুন পাইলট আবার ওই বিধায়কের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করার হুমকি দিয়েছেন।

 

Related Articles

Back to top button
Close