fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউন, বোনেদের রাখী ডাকবাক্সে যাবে ভাইদের বাড়ি

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: করোনা সংক্রমণ থাবা বসিয়েছে। চলছে লক ডাউন। তার জেরে স্বশরীরে রাখী পড়ায় ভাঁটা। তাই এমন পরিস্থিতিতে অনেকটাই ভরসা বেড়েছে বোনেদের পাঠানো পার্সেলের রাখী। অনেক বোন আবার ভার্চুয়াল রাখী ভাইয়েদের হাতে পড়াবে। আসানসোলের বাজারের দোকানে দোকানে এবার রাখী কেনার হিড়িকও অনেকটাই কম।

তাই এবার রাখী পূর্ণিমায় ভালো ব্যবসার মুখ দেখছে বলে ডাকঘর ও অনলাইন শপিং সংস্থাগুলি দাবি করেছে।
অনেক দিদি ও বোনেরা ভাইয়েদের থেকে দূরে থাকেন, লক ডাউন ও করোনার জন্য বাড়ি আসতে পারেননি। তারা এবার অনলাইন ও ডাকঘরের মাধ্যমে রাখী ও গিফ্ট কিনে পাঠিয়ে দিয়েছে ভাইয়েদের বাড়িতে। বেশীরভাগ ক্যুরিয়ার সংস্থা বন্ধ। তাই ভাইয়েদের বাড়িতে রাখী পাঠানোর অনেকেই পোস্ট অফিসের শরণাপন্ন হয়েছেন।
ডাক বিভাগের আসানসোল শাখার কর্মীরা এবার রাখী সঠিক সময়ে ভাইয়েদের বাড়ি পৌঁছে দিতে বিশেষ উদ্যোগী হয়েছেন। আসানসোল শাখা সিনিয়র পোষ্টমাষ্টার মধুসূদন রায় বলেন, করোনার এই সঙ্কট কালে ভাই বোনেদের আবেগের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা রাখী উৎসব ভেস্তে না যায়, তারজন্য আমরা বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছি। শুধুমাত্র রাখীর জন্য বিশেষ কাউন্টার খোলা হয়েছে। কোনও ভাবেই যেন রাখী দিতে আসা গ্রাহকদের সমস্যা না হয় তারজন্য আধিকারিকদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়েছে।
আসানসোলের বাসিন্দা শ্যামলী হাজরা বলেন, আমি এবার রাখীতে বাপের বাড়ি যেতে পারছি না। তাই রাখী কিনে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে ভাইকে পাঠিয়েছিন। আরো একজন অনামিকা আগরওয়াল বলেন, একটি অনলাইন শপিং কোম্পানির মাধ্যমে রাখী ও গিফ্ট কিনে উড়িষ্যায় ভাইকে পাঠিয়েছি । ভাই রয়েছে কর্মসূত্রে সেখানে। সৌরভি দূবে বলেন, রাখী ভাইয়ের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি পার্সেলের সাহায্যে। তবে সোমবার রাখীর দিন হোয়াটস্ অ্যাপে ভিডিও কল করবো ভাইকে।
একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী সুশীল পাসোয়ান বলেন, শনিবা ও রবিবার যত পার্সেল ডেলিভারি করেছি, তার বেশিরভাগই রাখী ও গিফ্ট।

Related Articles

Back to top button
Close