fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সংক্রমণ রুখতে মাস্ক ফেলতে বসছে ড্রাম, শুরু র‍্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: শহরের দিনে দিনে বাড়ছে সংক্রমণ, যা রাজ্য প্রশাসনের উদ্বেগ বাড়াছে। শহরের কন্টেনমেন্ট জোনগুলিতে র‍্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট শুরু করা আর মাস্ক আর গ্লাভস ফেলার জন্য শহর জুড়ে হলুদ ড্রাম বসানো। এই পদক্ষেপের মাধ্যমেই শহরকে মারণ ভাইরাস মুক্ত করার পথে হাঁটা দিচ্ছে পুরনিগম কর্তৃপক্ষ।

শ হরজুড়ে হলুদ রঙের ড্রাম বসাবে কলকাতা পুরসভা। অফিস বা ব্যবসার কাজে শহরে আসা এবং বাসিন্দা উভয় শ্রেণির মানুষকেই নিজেদের ব্যবহার করা মাস্ক, গ্লাভস ওই পাত্রে ফেলতে হবে। বিশেষ পরিকাঠামোর গাড়ি দিয়ে ওই হলুদ ড্রাম থেকে পরিত্যক্ত সামগ্রী ‘বায়ো মেডিক্যাল বর্জ্য’ হিসাবে পরিত্যক্ত সংগ্রহ করে বিজ্ঞানভিত্তিক পথে ধ্বংস করা হবে। রাস্তায় ফেলে দেওয়া মাস্কের মতো করোনা প্রতিরোধী ব্যবহার্য থেকে সংক্রমণের শঙ্কা নিয়ে সোমবার পুরভবনে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠকের পর এমনই সিদ্ধান্তের কথা জানান মুখ্য প্রশাসক পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। বাসস্ট্যান্ড, শপিং মল, বাবাসস্ট্যান্ড, শপিং মল, বাজার, জার, পেট্রল পাম্পের সামনে যেমন এই হলুদ ড্রাম বসানো হবে তেমনই গড়িয়াহাট, বিবাদী বাগ, শ্যামবাজার, হাজরা, ধর্মতলা, হাতিবাগানের মতো জনবহুল জায়গায় থাকবে।

আরও পড়ুন: ঊর্ধ্বমুখী ডিজেলের দাম, ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে কড়া অবস্থান বাস মালিকদের

মঙ্গলবার থেকে কলকাতা পুর এলাকার ৫টি কন্টেনমেন্ট জোনে র‍্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট শুরু হয়েছে। দক্ষিণ কলকাতার ঢাকুরিয়া এলাকার পঞ্চাননতলা এলাকা থেকে এই কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে কলকাতা পুরনিগম কর্তৃপক্ষ। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর ও আইসিএমআরের উদ্যোগে কন্টেনমেন্টে জোনগুলিতে কোন কোন সাধারণ মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে, সেটা খুঁজে বার করতেই এই পরীক্ষা শুরু হয়েছে। কলকাতা পুরসভার যে ৫টি ওয়ার্ডের ৫টি কন্টেনমেন্ট জোনে এই পরীক্ষা চালানো হচ্ছে সেগুলি হল ১১, ২৮, ৬১, ৮২ ও ৯০। প্রথম পর্যায়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে ১০০টি করে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেগুলি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে চেন্নাইতে আইসিএমআরের ল্যাবে।

Related Articles

Back to top button
Close