fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

মাত্র ১০ দিনেই ১০০ কোটি, কর আদায়ে রেকর্ড গড়ল কলকাতা পুরসভা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ধীরে ধীরে কাটছে কলকাতা পুরসভার কোষাগারের বেহাল দশা। নজিরবিহীন ভাবে মাত্র দশ দিনেই একশো কোটি টাকা সম্পত্তি কর জমা পড়ল পুরভবনের কর বিভাগে। তবে এই বিপুল পরিমাণ কর জমা হওয়ার পেছনে নাগরিকদের সচেতনতাকেই কৃতিত্ব দিয়েছেন কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম।

করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘ লকডাউন এর জেরে রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে বেগ পেতে হচ্ছে কলকাতা পুরসভাকে। এদিকে মহামারীর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ এবং আমফান মোকাবিলায় কোটি কোটি টাকা খরচ হচ্ছে পুরকর্তৃপক্ষকে। এই পরিস্থিতিতে পুরকোষাগার চাঙ্গা করতে ১০০ শতাংশ সুদ এবং জরিমানা মুকুব করেছিল পুর কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও লকডাউন এর জেরে দপ্তরে এসে কর জমা দিতে না পারায় নাগরিকদের জন্য অনলাইনে কর আদায় শুরু করেছিল পুরসভা। এর পাশাপাশি সম্পত্তিকর আদায় করতে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্তাদের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। এই একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণের পর কার্যত নজিরবিহীনভাবে অগাস্ট মাসের প্রথম 10 দিনেই একশ কোটি সম্পত্তি কর আদায় হয়েছে কলকাতা পুরসভার কোষাগারের। যা কার্যত এতদিনের রেকর্ড বলে দাবি পুর কর্তৃপক্ষের।

লকডাউনের জেরে ২২ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত বন্ধ ছিল পুরসভার সম্পত্তি কর বা অন্যান্য কর সংগ্রহের বিভাগ। অনলাইনে মাত্র ৩০ কোটি টাকা জমা পড়ছিল। কিন্তু ১ জুন থেকে আনলকে পুরকর আদায় শুরু হতেই ৩১ জুলাই পর্যন্ত প্রায় ২৬০ কোটি জমা পড়ে পুরসভার কোষাগারে। এদিকে লকডাউন শুরুর আগে, ২১ মার্চ পর্যন্ত ৮৫০ কোটি সংগ্রহ হয়েছিল। পরবর্তী দশ দিনে আরও ১৫০ কোটি সংগ্রহের যাবতীয় প্রস্তুতি ছিল পুরসভার কর আদায় বিভাগের অফিসারদের। গত দু’মাসে যে ২৬০ কোটি আদায় হয়েছে তার মধ্যে ওই দেড়শো কোটির একটা অংশ রয়েছে বলেও দাবি করেছেন পুর অফিসাররা।

অবশ্য এই সংকটকালীন মুহূর্তে পুরপরিষেবা নিয়ে খুশি নাগরিকরা। সেই কারণেই তারা পুরসভার আবেদনে সাড়া দিয়ে যথাযথ কর জমা করেছেন বলে জানান কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক তথা প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। এছাড়াও কর্পোরেট স্টাইলে যেভাবে বরো ভিত্তিক এবং বিভাগীয় আধিকারিকদের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়ে কর আদায় করতে উদ্যোগী হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ তারও প্রশংসা করেছেন ফিরহাদ হাকিম।

Related Articles

Back to top button
Close