fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মহকুমা শাসকের অনুরোধ খারিজ, অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় অস্থায়ী কলেজ কর্মীরা

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: মহকুমা শাসকের অনুরোধেও অনশন ধর্মঘট তুলতে রাজি হলেন না পশ্চিমবঙ্গ কলেজ এমপ্লয়ী সমিতির সদস্যরা । চাকরির নিরাপত্তা ও সুনির্দিষ্ট বেতন কাঠামো চালুর দাবিতে  পূর্ব বর্ধমানের রায়নার শ্যামসুন্দর কলেজ গেটের সামনে তাঁরা অনশন ধর্মঘটে বসেছেন । শুক্রবার তাঁদের অনশন ধর্মঘট ১১ দিনে পড়ল। সরকার দাবি না মানা পর্যন্ত অনশন ধর্মঘট চালিয়ে যাবার সিদ্ধান্তেই অনড় থাকলেন অনশনকারীরা ।

জেলা শাসকের নির্দেশে এদিন পূ্ব বর্ধমান (দক্ষিন ) মহকুমা শাসক সুদীপ দাস , রায়না ১ ব্লকের বিডিও সৌমেন বণিক ,শ্যামসুন্দর কলেজের অধ্যক্ষ গৌরিশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখরা অনশনকারীদের কাছে পৌছান । মহকুমা শাসক অনশনকারীদের অনশন প্রত্যাহার করেনেবার আহ্বান জানান । কিন্তু  মহকুমা শাসকের আবেদন কার্যত খারিজ করে দিলেন অনশনকারীরা।উল্টে আনশনকারীরা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তাঁদের দাবি মানা না হলে তাঁরা রাজ্য সরকারের কাছে স্বেচ্ছা মৃত্যুর আবেদন জানাবেন ।

অনশন ধর্মঘটে অংশ নেওয়া পশ্চিমবঙ্গ কলেজ এমপ্লয়ী সমিতির পূর্ব বর্ধমান জেলা সভাপতি কৃশানু পাল বলেন ,“তাঁরা ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত চাকরির নিরাপত্তা, সুনির্দিষ্ট বেতন কাঠামো নির্ধারণ ও ৩৯৯৮ এফপি ২ জিও লাগু দাবিতে অনশন ধর্মঘট শুরু করেছেন । গত বছর পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই জিও লাগু করেছে। তার পরিপ্রেক্ষিতে সারা পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত অস্থায়ী কর্মচারীরা এর আওতায় এসেছে। শুধুমাত্র ব্রাত্য রয়েগেছেন কলেজের অস্থায়ী কর্মচারীরা”। সমিতির কার্যকরী সভাপতি সৈকত নেগেল বলেন , ১১ দিন হল তাঁরা শ্যামসুন্দর কলেজের গেটের সামনে বসে অনশন ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছেন ।

 

অনশনে ১৭ টি কলেজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত হয়েছেন । টানা অনশনের জেরে ইতিমধ্যেই বেশ কয়কজন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। মহকুমা শাসক অনশন তুলে নেবার অনুরোধ করেছেন । কিন্তু দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা কেউই অনশন প্রত্যাহারে রাজি নন । অনশনে সামিল সেখ পায়েল বেগম বলেন, যতদিন না সরকার তাদের দাবি মেনে নিচ্ছে ততদিন পর্যন্ত তারা অনশন চলিয়ে যাবেন ।সৈকত নেগেল বলেন, “তাঁরা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে এক বছর ধরে দরবার করে গেছেন।কিন্তু তাদের দাবী মানা হয় নি।তাই তাঁরা বাধ্য হয়েই অনশনে সামিল হয়েছেন।এতেও কাজ না হলে তারা রাজ্য সরকারের কাছে স্বেচ্ছা মৃত্যুর আবেদন করবেন।”মহকুমা শাসক সুদীপ দাস বলেন, “অনশনকারীদের সঙ্গে কথা হয়েছে । তাঁদের অনশন তুলে নেবার অনুরোধ করেছি । অনশনকারীদের দাবী সরকারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে ।”

Related Articles

Back to top button
Close