fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

অনুব্রত মণ্ডলের পাঠানো ত্রাণ বিলি বাহিরী পাঁচশোয়া অঞ্চলে,খুশি দুঃস্থরা

মমতা চক্রবর্তী,নানুর: করোনা ভাইরাস ঠেকাতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। লকডাউনের ফলে বন্ধ দোকানপাট থেকে শুরু করে সমস্ত কলকারখানা ও কাজের জায়গা গুলি। তার জেরে বন্ধ সমস্ত কাজকর্ম। এর ফলে দুস্থরা খুব সমস্যায় পড়ছেন। লকডাউনের জন্য কাজ চলে যাওয়ায় তারা দুবেলা কী খাবে সেই নিয়ে খুব চিন্তিত। যেসব মানুষ দিন আনে দিন খায় তাদের এখন ইনকামের পথ সম্পূর্ণ বন্ধ। তাই তাদের খাদ্যের যেন সঙ্কট দেখা না যায় সেইজন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বেশকিছু সমাজসেবক ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা একাধিক ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন। তবে তারা যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছিলেন সেটা পর্যাপ্ত হয়ে উঠছিল না। তাই দুঃস্থ মানুষদের কথা চিন্তা করে বীরভূম জেলার তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল নিজের বাড়িতে বসে একটি সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়েছিলেন বীরভূম সহ পূর্ব বর্ধমান জেলার আউসগ্রাম,কেতুগ্রাম,মঙ্গলকোট বিধানসভার অন্তর্গত সমস্ত দুঃস্থ মানুষদের তিনি খাদ্য সামগ্রী করবেন। আর এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করার জন্য অনুব্রত মণ্ডল ৩৫ হাজার বস্তা চাল ও ৭২ টন ডালের বরাদ্দ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: বাংলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২, আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫২২

ইতিমধ্যেই এই ত্রাণ বিতরণ বোলপুর ত্রিশূলাপট্টি এলাকা থেকে হয়েছে। সেখান থেকে সেদিন ত্রাণ বোঝাই লরি লরি মাল অনুব্রত মণ্ডল সবুজ পতাকা দেখিয়ে লরি গুলিকে রওনা করেন। সেখান থেকে মাল বোঝাই লরি গুলি বিভিন্ন অঞ্চলে যায়। সেইরূপ বাহিরী পাঁচশোয়া অঞ্চলেও সেই খাদ্য সামগ্রী আসে ও আজ সেই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। বাহিরী পাঁচশোয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শুভঙ্কর সাধু নিজের হাতে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিল অঞ্চলের একাধিক তৃনমূল নেতৃত্ব। আজ ওই খাদ্য সামগ্রী বাহিরী তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় থেকে ওই অঞ্চলের সমস্ত বুথে বুথে পাঠানো হয় দুঃস্থদের দেওয়ার জন্য। কিন্তু আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় পঞ্চায়েত প্রধান নিজে গিয়ে নিজের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেবেন বলে জানা গিয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close