fbpx
দেশহেডলাইন

জেরা সারারাত, সকালে বাইকুল্লা জেলে স্থানান্তরিত রিয়া, আজ ফের জামিনের আবেদন অভিনেত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেফতার হওয়ার পর প্রথম রাত কাটল এনসিবির লক আপে। ১২টা নাগাদ ভাই শৌভিকের সঙ্গে রাতের খাবার খান তিনি। বুধবার সকাল থেকে শুরু হয় জেল যাত্রার প্রস্তুতি। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ৮৭ দিনের মাথায় গতকাল মাদক-যোগে এনসিবির হাতে গ্রেফতার হন রিয়া। রিয়াকে গ্রেফতার করেছিল নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টে নাগাদ রিয়ার স্বাস্থ্য-পরীক্ষা অর্থাত্‍ মেডিক্যাল টেস্ট হয় মুম্বইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা নাগাদ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আদালতে পেশ করা হয় তাঁকে। গতকাল রিয়াকে গ্রেফতারের পরি এনসিবির পক্ষ থেকে জানানো হয় যে রিয়াকে হেফাজতে নেওয়ার জন্য তারা আদালতে আবেদন জানাবে না।

সারা রাত নার্কোটিক্স ব্যুরোর দফতরে জেরার মুখোমুখি হওয়ার পর বুধবার সকালে রিয়া চক্রবর্তীকে বাইকুল্লা জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। আপাতত ১৪ দিনের জন্য তাঁকে জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। উল্লেখ্য, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় গতকালই রিয়া চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করে এনসিবি। তারপর রাতেই তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ করে ম্যাজিস্ট্রেট ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। তারপরেই রিয়াকে ফের এনসিবি দফতরে নিয়ে আসা হয়। সেখানে সারা রাত ফের একদফা জেরা করা হয়। তারপর বুধবার ভোরে তাঁকে সেখানে থেকে বাইকুল্লা জেলে স্থানান্তরিত করা হয়।

গতকাল তাঁর জামিনের আবেদন খারিজ করে আদালত। তবে শোনা গিয়েছে, আজ সেশন কোর্টে ফের রিয়ার জন্য জামিনের আবেদন করবেন তাঁর আইনি পরামর্শদাতারা। আপাতত তাঁকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৪ দিনের জন্য বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। জানা গিয়েছে, যে যে ধারায় রিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তাতে অন্তত ১০ বছরের জেল হতে পারে তাঁর।

ইতিমধ্যেই এনসিবি’র সামনে রিয়া চক্রবর্তী স্বীকার করেছেন তিনি ও সুশান্ত নিয়মিত ড্রাগ নিতেন। এমনকি তিনি যে সুশান্তকে ড্রাগ এনে দিতেন, সেকথাও জেরায় স্বীকার করেছেন তিনি। যদি তাঁর এই দোষ প্রমাণিত হয়, তাহলে ১০ বছর পর্যন্ত তাঁর কারাবাসের শাস্তি হতে পারে। উল্লেখ্য, এই একই ঘটনায় ড্রাগ দেওয়ার অভিযোগে রিহার ভাই সৌভিক চক্রবর্তীও গ্রেফতার হয়েছেন গত সপ্তাহেই। এছাড়াও, সুশান্তের ম্যানেজার, বাড়ির রাঁধুনি-সহ একাধিক ড্রাগ ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে এনসিবি।

আরও পড়ুন: দেশে ফের বাড়ল সংক্রমণ, একদিনে আক্রান্ত ৯০ হাজার

রবি ও সোমবার জেরার পর মঙ্গলবার রিয়াকে ডেকে পাঠানো হয় এনসিবি দফতরে। সেখানে তাঁকে দুপুরে গ্রেফতার করা হয়। বিকেলে মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হয় রিয়ার। এরপর তাঁকে ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত। রিয়াকে হেফাজতে চাওয়া হবে না বলে স্পষ্ট করেছিল এনসিবি সংস্থার আধিকারিক অশোক জৈন বলেন,”রিয়ার বিরুদ্ধে প্রমাণ রয়েছে আমাদের হাতে। সে জন্যই গ্রেফতার করেছি। তবে হেফাজতে নেওয়ার দরকার নেই। তাঁকে জেরা করে আমরা সন্তুষ্ট। আর রিয়ার জবাবে মিলিয়ে দেখার জন্য ইতিমধ্যেই তো কয়েক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।”

সূত্রের খবর, এনসিবি-র জেরায় রিয়া চক্রবর্তী ও শৌভিক জেরায় ২০ থেকে ২৫ জন বলিউডের তাবড় তারকার নাম করেছেন। ওই স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে একটি তালিকা তৈরি করেছে এনসিবি। ওই তালিকায় নাম রয়েছে  পরিচালক, অভিনেতা, অভিনেত্রীদের।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close