fbpx
দেশহেডলাইন

লকডাউনের মাঝে মদের দোকান খোলার আর্জি, শিবসেনার তোপের মুখে রাজ ঠাকরে

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। কেন্দ্রীয় সরকার কিছু বিষয়ে লকডাউন শিথিল করার কথা ঘোষণা করলেও মদের দোকান খোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে। এহেন পরিস্থিতিতেও মহারাষ্ট্রে মদের দোকান খোলার আর্জি জানিয়েছেন এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরে। রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য এই আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি। তবে তাঁর এই আর্জির বিরুদ্ধে সরব হল শিবসেনা। মুখপত্র সামনায় রাজ ঠাকরেকে একহাত নিয়ে শিব সেনা বলে, ওনার ধারণা, মদ জিনিসটা ভাতের মতোই প্রয়োজনীয়।

উল্লেখ্য, দেশ জোড়া লকডাউনে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত মহারাষ্ট্র। একদিকে যেমন অর্থনীতির বেহাল দশা এই বাণিজ্য নগরীতে তেমনই পরিযায়ী শ্রমিকদের চিন্তা ভাঁজ ফেলেছে মহারাষ্ট্র সরকারের কপালে। এমন করুণ পরিস্থিতিতে যেখানে ভাবাচ্ছে দেশের তাবড় অর্থনীতিবিদদের সেখানে মদের দোকান খোলা আবশ্যিক বলে দাবি জানান এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরে। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রীর অফিসে চিঠি দেন রাজ ঠাকরে। তিনি বলেন, “আমি মদ্যপদের কথা ভেবে মদের দোকান খোলার কথা বলছি না। এই কঠিন সময়ে যাতে সরকার কিছু রাজস্ব পায় সেজন্যই এই প্রস্তাব দিচ্ছি।” একইসঙ্গে রাজ ঠাকরে হোটেলগুলি খোলার ও যাঁরা রান্না করা খাবার বিক্রি করেন, তাঁদের কাজ করার অনুমতি চান। কারণ বহু মানুষ এই দু’টি ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত।

 

তার এই মন্তব্যের পরই শনিবার তাঁকে এ নিয়ে কটাক্ষ করে শিব সেনা জানায়, রাজ ঠাকরের ধারণা, মদও ভাতের মতোই প্রয়োজনীয়। তিনি সত্যিই রাজ্যের রাজস্ব বাড়াতে আগ্রহী কিনা, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে উদ্ধব ঠাকরের দল। সেনার বক্তব্য, রাজ ঠাকরের জানা উচিত, লকডাউনের সময় কেবল মদের দোকানগুলি বন্ধ নেই। মদের কারখানাগুলিও বন্ধ রাখা হয়েছে। শনিবার শিব সেনা তার মুখপত্র সামনা-তে লেখে, শুধু মদের দোকান খুললেই রাজস্ব আসে না। কোনও ডিস্ট্রিবিউটরকে কারখানা থেকে মদ কিনে তা বেচতে হয়। তখন সরকার তাঁর থেকে আবগারি শুল্ক ও বিক্রয় কর পায়। মদের কারখানা খুলতে হলেও শ্রমিকদের প্রয়োজন হয়। তাছাড়া মদের দোকান খোলা হলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে না। ফলে মহারাষ্ট্র পরিস্থিতি আরও দুর্বিসহ হয়ে উঠবে।

Related Articles

Back to top button
Close