fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নদীর পাড় বাঁধানোর দাবীতে পথ অবরোধ

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝাড়গ্রাম: কংসাবতী নদী পাড় বাঁধানোর দাবিতে পথ অবরোধ করলেন স্থানীয় মানুষজনেরা। রবিবার নদীর পার বাঁধাইয়ের দাবিতে পুরুষ, মহিলা নির্বিশেষে পথে নেমে প্রায় পাঁচ ঘন্টা পথ অবরোধ করেন। যদিও পরে পুলিশ এবং ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্বাস মেলার পর অবরোধ তুলে নেন বাসিন্দারা।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর বর্ষায় কংসাবতী নদী ফুলে ফেঁপে এক ভয়ঙ্কর রূপ নেয়। নদীর পার ভাঙার শব্দে মানুষের আতঙ্কে দিন কাটায় নদী সংলগ্ন এলাকার মানুষরা। তাই নদী ভাঙন আটকাতে নদীর পার বাধাই করে দেওয়ার জন্য বারং বার প্রশাসনের কাছে দ্বারস্থ হয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। কিন্তু অভিযোগ, আজ অবধি নদী ভাঙন রোধ করার জন্য কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয় নি।

প্রতিবছর বর্ষায় নদীর পার এমন ভাবে ভাঙছে যে তাতে অনেক মানুষের চাষের জমি নদী গর্ভে তলিয়ে গিয়েছে। নদীর পারে অবস্থিত বৈতা, বালিশিরা, কুমোর পাড়া, নয়াপালের মতে গ্রাম গুলি খুবই বিপন্ন অবস্থায় রয়েছে। নদীর কিনারার বাস্তু ভিটা গুলি যে কোনও মুহুর্তে নদীতে তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।যাদের কেবল বাস্তু ভিটাটুকু সম্বল তারা এক অজানা ভয়ের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। স্থানীয় মানুষজন জানাচ্ছেন, এবার বর্ষায় কংসাবতী নদীর পার প্রায় দশ হাতের কাছা কাছি ধ্বসে গিয়েছে। তাদের অভিযোগ, এই এলাকায় সার্ভে হলেও আজ পর্যন্ত নদীর ভাঙন রোধে কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয় নি।

এদিন পথ অবরোধে মহিলাদের উপস্থিতি ছিল উল্লেখযোগ্য। সকাল আটটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত অবরোধ চলার পরে ব্লক প্রশাসন,পুলিশের আশ্বাসের পর অবরোধ তুলে নেয় গ্রামবাসীরা। এলাকার বাসিন্দা শিবু চালক বলেন, “কংসাবতী নদীর ভাঙনে মানুষের বাস্তু ভিটে আদৌ থাকবে কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।বহু জমি তলিয়ে গিয়েছে। মানুষ বাস্তুহারা হলে কোথায় যাবে। আমরা বারবার প্রশাসনিক বিভিন্ন মহলে ভাঙন রোধের জন্য আবেদন করেছি। কিন্তু কোনও কাজ হয় নি। তাই আজ বাধ্য হয়ে মানুষ পথে নেমেছে।”

Related Articles

Back to top button
Close