fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

ভোট ভাঙার চেষ্টা! একুশের নির্বাচনের আগে তৃণমূলের মুসলিম ‘বঞ্চনা’ নিয়ে সরব হবে আরএসএসের শাখা সংগঠন

মোকতার হোসেন মন্ডল: একুশের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের সংখ্যালঘু ভোটে ভাঙন ধরাতে পথে নামছে আরএসএস এর শাখা সংগঠন মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চ। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংঘের ওই সংগঠনটি বলছে, ‘৩৫ বছর ধরে বামফ্রন্ট বাংলার মুসলিমদের নিয়ে ফুটবলের মতো খেলেছে আর বর্তমান তৃণমূল সরকার মুসলমানদের লেঠেল বাহিনী হিসাবে ব্যবহার করছে। বাস্তবের মুসলমানরা না পেয়েছে চাকুরী, না শিক্ষা, না হয়েছে অর্থনৈতিকভাবে সফল। তাই অধিকাংশ মুসলমান শিক্ষার অভাবে আন্দাজ প্রায় ২৬ হাজার জেলে বন্দী, এরা রাজনৈতিকভাবে খুন-খারাবি এবং বিভিন্ন কুকর্মের কারনে জেলে আছে।”

আরএসএসের শাখা সংগঠন মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চের রাজ্য কনভেনর সৈয়দ আলি আফজল চাঁদ বিবৃতিতে বলেন, বর্তমান সরকার মুসলমান সমাজের সাচার কমিটির সুপারিশ আজ পর্যন্ত কার্যকর করেনি। শুধুমাত্র মমতার দুধেল গরু হিসাবে এদের ব্যবহার করা হয়। আর বিজেপি ও আরএসএস জুজু দেখিয়ে ভোট ক্যাপচার ছাড়া আর কিছুই করেনি। বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর কাজ হল এলিট মুসলমানদের কিছু মুখ ব্যবহার করে আখের মতো রস বার করে ছিবড়ে করে ফেলে দেওয়া। যেমন টিপু সুলতান মসজিদের ইমাম বরকতিকে ব্যবহার করে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন। তাই আদরনীয় আরএসএসের কার্যকরী সদস্য ও মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চের মুখ্য মার্গদর্শক ইন্দ্রেশ কুমারের নির্দেশে ন্যাশনাল কনভেনর ও ওয়েস্ট বেঙ্গল অবজারভার ডঃ ফাহিদ আক্তার আমাদের রাজ্য কমিটিকে জানিয়েছেন, আগামী ১০ আগষ্ট পর্যন্ত আমাদের যে ‘আত্মনির্ভর ভারত’ স্বাক্ষর অভিযান কর্মসূচি চলছে, তা শেষ হলে এবং করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই মুসলিম সমাজের মানুষের কাছে গিয়ে তাদের প্রকৃত চিত্র তুলে ধরা হবে।”

[আরও পড়ুন- বাংলাদেশ সহ ভারত উপমহাদেশে পবিত্র ঈদ উদযাপিত হবে ১ আগস্ট, ঘোষণা চাঁদ কমিটির]

ওই প্রেস বিবৃতিতে ওই আরএসএসের শাখা সংগঠনের নেতা আরও বলেন,  সামনের ভোটে যাতে সংখ্যালঘু মানুষকে অপকর্মে তৃণমূল ব্যবহার করতে না পারে তার জন্য আমরা গ্রামে গিয়ে প্রচার করব। সাচার কমিটির রিপোর্ট (সুপারিশ) সামনে আনব। এই কমিটির সুপারিশ এই সরকার মানেনি। পাশাপাশি রাজ্যের কয়েকজন প্রভাবশালী মুসলমান মানুষ কীভাবে তৃণমূলের আমলে বিত্তবান হয়েছে তাও তুলে ধরা হবে। আমরা মনে করি পাঁচ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোটে থাবা বসাতে পারলেই কেল্লাফতে। তাহলেই মমতা বন্দোপাধ্যায়কে নবান্নের চেয়ার থেকে নামানো সম্ভব হবে।”

তবে আরএসএসের এই মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চের কথা আদৌ মুসলিম সমাজের লোক মানবে কি? সূত্রের খবর, বিজেপি নেতারাও জানেন পশ্চিমবঙ্গে একটা বড় ফ্যাক্টর সংখ্যালঘু ভোট। এই ভোটের একটা বড় অংশ এখন তৃণমূলের দখলে। বিজেপি চাইছে তৃণমূলের মুসলিম ভোটে ভাঙন ধরাতে। কিছু ভোট আলাদা করার চেষ্টা চালাবে। মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চের ওই নেতা আলি আফজল চাঁদও এক সময় বিজেপির হয়ে ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button
Close