fbpx
অন্যান্যকলকাতাদেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

গণেশ চতুর্থীর নিয়মসমূহ

দোয়েল দত্ত: হিন্দুদের অন্যতম পবিত্ৰ উৎসব গণেশ চতুর্থী বা বিনায়ক চতুর্থী, পুরো দশদিন ধরে মহারাষ্ট্ৰ,গুজরাত সহ ভারতের পশ্চিম প্ৰদেশের অনেক জায়গাতেই বিশেষত গোয়া, কর্ণাটক, আবার মধ্যভাগের তেলেঙ্গানা, মধ্যপ্ৰদেশেও এই উৎসব মহা ধূমধামের সঙ্গে পালিত হয়৷ যদিও এখন আন্তরিকতার বদলে গ্ল্যামার কালচারের প্ৰাধান্যই আছে৷ তবু এসব বিতৰ্কিত বিষয়কে সরিয়ে ফেরা যাক মূল বিষয়ে৷ গণেশ চতুর্থী আদপে সিদ্ধিদাতা গণেশের জন্মদিন৷

সমৃদ্ধি, অৰ্থ, জ্ঞান, বিজ্ঞান সমস্ত কিছুর দেবতা হিসাবে হিন্দুশাস্ত্ৰে গণেশ পূজিত হন৷ সেজন্য কোনও গুরুত্বপূৰ্ণ কাজ বিশেষ করে ব্যবসার কাজ শুরু করতে গেলে তাঁর আশীর্বাদ নেওয়া হয়৷ সিদ্ধিদাতা গণেশের মোট ১০৮টি নাম আছে৷ তার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হল গজানন, বিনায়ক, , বিঘ্নবিনাশক, গণপতি ইত্যাদি৷

দশদিন ধরে গণেশ উৎসব চললেও এর মূলত চারটিপর্যায় আছে-প্ৰাণপ্ৰতিষ্ঠা, শোদ্ধাশোপাচারা, উত্তরপূজা এবং গণপতি বিসৰ্জন৷ তবে গণেশ পুজোকে ঘিরে যে উন্মাদনা তা মূল তিথির সপ্তাহখানেক আগে থেকেই শুরু হয়ে যায়৷ সৰ্বত্ৰই চলে আসে ছুটির মেজাজ৷

 

তবে হ্যাঁ, এবারে করোনাজনিত পরিস্থিতিতে সবকিছুই আলাদা৷ গণেশচতুর্থী কতটা তার সাৰ্বজনিক রূপ পাবে, ভিড়ভাট্টা কতটা হবেএসব নিয়ে সাধারণের মধ্যে প্রশ্নচিহ্ন থেকেই যায়৷ তবে বাড়িতে বাড়িতে গণেশ উপাসনা করতে তো কোনও বাধা নেই৷পুজোর প্ৰথম ধাপটি প্ৰাণপ্ৰতিষ্ঠা, যেখানে পুরোহিত মন্ত্ৰোচ্চারণের মাধ্যমে গণেশমূৰ্তির মধ্যে প্ৰাণপ্ৰতিষ্ঠা করেন, তারপরে তাঁকে বস্ত্ৰ, ফুল, মিষ্টান্ন, ফলাদি অৰ্পণ করা হয়৷ এরপরে ১৬টি ভিন্ন উপাচারে গণেশবন্দনা করা হয়, যাকে বলা হয় শোদ্ধাশোপাচারা৷

এর পরের ধাপ উত্তরপূজা৷ এখানে গণপতি বাপ্পাকে পূৰ্ণ শ্ৰদ্ধায় বিদায় জানানোর পালা, এই পৰ্বটিতে থাকে কিছু নিয়মাবলী৷ এরপরে গণপতি বিসৰ্জন৷ আরবসাগর কিংবা পাওয়াই লেকেই হয় মূলত বিসৰ্জন৷ সেসময়ে গণপতি বাপ্পা মোরিয়াতে চারপাশ গমগম করতে থাকে৷ এ-বছরের বিদায়ের পালার মধ্যেই পরের বছরের আগমনের সুর যেন শুরু হয়ে যায়৷
প্ৰসঙ্গত জানিয়ে রাখি গণপতি পুজোয় মূল প্ৰসাদ মোদক, মোট ২১ টি মোদক দিতে হয়, এছাড়াও পুরণপোলি, মোতিচূর লাড্ডু, পায়েস, কারাঞ্জির মতো প্ৰাদেশিক খাবারও দেওয়াহয়৷

Related Articles

Back to top button
Close