fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আজও বসু বাড়ির পুজোর অঙ্গ পশু বলি

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: বসিরহাট মহাকুমার বাদুড়িয়া ব্লক এর আরবেলিয়া গ্রামে ঐতিহ্যবাহী বসু বাড়ি।এখানকার অশোক নাথ বসুর বাড়ির পুজো প্রায় ৪০০, বছরের প্রাচীন, বিশ্ব মহামারী করোনা আবহে যখন বহু প্রাচীন বাড়িগুলো পুজো বন্ধ রাখছে, ঠিক তখনই একেবারে ভিন্ন মতচিত্র অভিনেতা বিশ্বনাথ বসুর পরিবারের ।

প্রশাসনের ছাড়পত্র নিয়ে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে নিয়ে এই পুজো আরম্ভ হবে, তার কাজকর্ম চলছে বসু বাড়িতে, একদিকে যেমন প্রাচীন দালানকোঠা, লতা পাতা গাছ দিয়ে ভরে আছে সেগুলো পরিষ্কার করা হচ্ছে, অন্যদিকে এক কাঠামো দেবীর রূপ তৈরি করতে বসু বাড়িতে এসেছে বংশ-পরম্পরা মৃৎশিল্পী। মায়ের প্রতিমা তৈরি করার জন্য পাশেই ইছামতি নদী থেকে মাটি ও গঙ্গার জল এনে আরম্ভ হবে এখানকার বসু বাড়ি প্রাচীন এক কাঠামো  দেবী দুর্গার প্রতিমা, প্রাচীনকাল থেকে খচিত আছে বসু বাড়ির প্রতিমা যতক্ষণ পর্যন্ত দালানকোঠা থেকে প্রতিমা বিসর্জন না দেওয়া হবে ততো সময় পর্যন্ত দেবী প্রতিমা গড়ার কারিগর অর্থাৎ মৃৎশিল্পী ওই বসু বাড়ি থেকে কোথাও যেতে পারবেনা।

এমনকি বাদুড়িয়া ব্লকে যত জায়গায় পুজো হয় সেইসব পুজোর মণ্ডপ থেকে কোন প্রতিমা পুজো মণ্ডপ থেকে বাইরে বার করতে পারবে না, সে বারোয়ারি হোক আর জমিদার বাড়ির পুজো হোক, এই প্রথা মেনে আসছে যুগ যুগ ধরে। এই বসু বাড়ির পুজো তে ষষ্ঠী থেকে ছাগল বলির মধ্য দিয়ে দেবী পুজো আরম্ভ হয়, নবমী পর্যন্ত প্রতিদিন একটি করে ছাগল বলি হয়, সেই মাংস নিরামিষ রান্না করে প্রসাদ হিসাবে আশেপাশে  বহু গ্রামে বিলি করা হয়, এই প্রসাদ জাতপাতের ঊর্ধ্বে গিয়ে সমস্ত ধর্মের মানুষ গ্রহণ করে।

আরও পড়ুন: শরতের শিউলি ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

অভিনেতা বিশ্বনাথ বসুর বাড়ির পুজো প্রাচীন ইতিহাস বহন করে চলে আসছে চারশো বছর ধরে, অভিনেতার মা ছায়া বসু জানান, পুজোর ক’দিন দালানকোঠায় মুক্তমঞ্চে কলাকুশলীদের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় সেখানে আমাদের পরিবারের সঙ্গে মিলেমিশে একাকার হয়ে সব ধর্মের মানুষ এখানে এসে ভিড় জমায় এই দালানবাড়ীতে। এই ঐতিহ্যবাহী  বসু বাড়ির পূজার দেখতে বিভিন্ন  গ্রাম থেকে  বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ পুজোর কটা দিন এখানে এসে বসু বাড়ির মানুষদের সঙ্গে আনন্দ উপভোগ করে সেখানে কোন জাতির ভেদাভেদ নেই নেই মানুষের অহংকার এই রেওয়াজ চলে আসছে বহু বছর ধরে‌।

Related Articles

Back to top button
Close