fbpx
বিনোদনহেডলাইন

শ্রীলেখা মিত্রের স্বজনপোষণের অভিযোগ নিয়ে মুখ খুললেন শাশ্বত, ঋতুপর্ণা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহত্যার পর বলিউডের একাংশের বিরুদ্ধে উঠেছে স্বজনপোষণের অভিযোগ। টলিউডেও স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন শ্রীলেখা মিত্র। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করে এবিষয়ে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দেন শ্রীলেখা। তিনি প্রসেনজিত্‍ চট্টোপাধ্যায়, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, সৃজিত মুখোপাধ্যায়, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় সহ একাধিক জনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন।

শ্রীলেখা মিত্র যে অভিযোগ করেছেন তা নিয়ে ইতিমধ্যেই মুখ খুলেছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।শুধুমাত্র প্রসেনজিৎ-এর সঙ্গে জুটি বেঁধেই কাজের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। তিনি বলেন, ২০০১ -২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা জুটির আর কোনও ছবি হয়নি। তারপরেও তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে বিভিন্ন ছবি করে টিকিয়ে রাখতে পেরেছেন। তবে প্রসেনজিত্‍ চট্টোপাধ্যায় এটা নিয়ে এখনই কিছু বলতে চাননি।

মুখ খুললেন অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। শ্রীলেখার উদ্দেশ্য লাইভে শাশ্বত বলেন, ”আশ্বর্য প্রদীপে তোর আমার ওই দৃশ্যে অভিনয় করার মতো অভিনেত্রী খুব কম আছে। আমি চাইব তুই এটা থেকে বের হয়ে আয়। নেগেটিভিটির মধ্যে থাকিস না। দুবছর আগে আমি একটা ফ্রাঞ্চাইজির চিত্রনাট্য শুনেছি, তারপর দেখছি, সেটা অন্য কেউ করছে। এটা যদি আমি মাথায় রাখি, তাহলে তো জীবনে বাঁচতও পারব না।

আরও পড়ুন: করোনা ভাইরাস বিপজ্জনক পর্যায়ে প্রবেশ করেছে, সতর্ক করল WHO

শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় বলেন, ”এখন যে সময়ের মধ্যে দিয়ে আমরা যাচ্ছি, এই সময় প্রায় প্রত্যেক মানুষের মধ্যেই অবসাদ আসাটা খুব স্বাভাবিক। আমি বলবো আসুন আমরা চেষ্টা করি, যাতে নেগেটিভিটি না ছড়ায়। প্রত্যেক পেশাতেই অনেকের মনেই হয়ত এই ধারনাটা আছে, কোনও না কোনও ভাবে তাঁরা ঠকেছেন। এই ধারনাটা যদি মনে বসে যায়, সেখান থেকে বের হওয়ার কোনও রাস্তা তাঁরা জীবনে পাবেন না।”শাশ্বত আরও বলেন, ”আমার সঙ্গেও এমন ঘটেছে, কোনও একটা ছবিতে নায়কের সঙ্গে একটা মাত্র দৃশ্য ছিল, সেটা ডাবিং করতে গিয়ে দেখি আমি নেই। দেখুন, শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের ছেলে হিসাবে ইন্ডাস্ট্রিতে ঢোকার কোনও সুযোগই ছিল না। বাবার চেহারার একবিন্দু আমি পাই নি। আমার অভিনয়ের প্রতি ভালোবাসা ছিল, তাই এসেছি।”

অন্নদাতা’ ছবি নিয়ে শ্রীলেখা যে অভিযোগ করেছেন, সে প্রসঙ্গে মুখ খোলেন প্রযোজক অশোক ধানুকা। তার কথায়, “আমি ঋতুপর্ণাকে প্রথম ফোন করেছিলাম ‘অন্নাদাতা’র জন্য। ঋতুপর্ণা সে সময় আমেরিকাতে ছিলেন, তাই আমি শ্রীলেখাকে নিয়েছিলাম। তবে সেসময় যাদের দেখতে মানুষ চাইত, তাদেরকেই সাধারণত সিনেমায় কাস্ট করা হতো। আর শ্রীলেখা ‘অন্নদাতা’র আগে কোনো ছবিতে নায়িকা হননি। তাই আমি শ্রীলেখার উপর ভরসা করতে পারিনি। আসলে প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণার জুটির ছবি চলত, তাই এই জুটিকে নেওয়া হত। বুম্বাদা কোনোদিনই এনাকে নিতে হবে, ওনাকে নিতে হবে বলে ঠিক করে দেননি।”

Related Articles

Back to top button
Close