fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

বিদেশি শ্রমিকদের ‘কাফালা’ পদ্ধতির পরিবর্তন আনছে সৌদি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক, রিয়াধ: বিদেশি শ্রমিকদের জন্য এতদিন ‘কাফালা’ পদ্ধতি বাধ্যতামূলক থাকলেও এ বিষয়টির পরিবর্তন আনছে সৌদি আরব। সৌদি সরকার বলছে, নতুন নিয়মের মাধ্যমে তারা কাজের পরিবেশের উন্নয়ন এবং দক্ষতা বাড়াতে চায়। সৌদি আরব ঘোষণা করেছে, যে প্রবাসী শ্রমিকদের সঙ্গে চুক্তিতে যেসব বিধিনিষেধ রয়েছে, সেগুলোর কিছু কিছু তারা শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেসব সংস্কার আনা হচ্ছে, তাতে করে বেসরকারীখাতে কর্মরত বিদেশি কর্মীরা তাদের চাকরি পরিবর্তন এবং নিয়োগদাতার অনুমতি ছাড়াই সৌদি আরব ত্যাগ করার স্বাধীনতা পাবেন।

সৌদি আরবের জনশক্তি মন্ত্রণালয় বলছে, শ্রম সংস্কারের এই উদ্যোগ বুধবারে ঘোষণা করা হয়েছে, যা বেসরকারীখাতের বিদেশি সব শ্রমিকের জন্য প্রযোজ্য হবে এবং এটি কার্যকর হবে আগামী মার্চ মাস থেকে। এর ফলে কোন প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই শ্রমিকরা চাকরি পরিবর্তন করতে বা সৌদি আরব ত্যাগ করতে পারবেন। এছাড়া, এসব শ্রমিক নিয়োগকারীর অনুমতি ছাড়াই সৌদি আরবের বাইরে ভ্রমণ করতে পারবেন। বিদেশি শ্রমিকরা সরকারী সেবার জন্য সরাসরি আবেদন করতে পারবেন, আর তাদের চুক্তি ডিজিটাল পদ্ধতিতে লিপিবদ্ধ থাকবে। এপ্রসঙ্গে, সৌদি আরবের জনশক্তি মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ বিন নাসের আবু থুনাইন বলেন, ‘এই উদ্যোগের মাধ্যমে আমরা একটি আকর্ষণীয় শ্রমবাজার গড়ে তুলতে চাই, আর চাই কাজের পরিবেশকে উন্নত করতে।’ তেল-নির্ভর এই দেশটির অর্থনীতি আরও বহুমুখীকরণ করতে যে ভিশন-২০৩০ নেওয়া হয়েছে, তার লক্ষ্য অর্জনে এই সংস্কার কার্যক্রম সহায়তা করবে বলে তিনি মনে করেন।

আরও পড়ুন- প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেল আমেরিকা

উল্লেখ্য, চলমান ‘কাফালা’ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করে আসছে মানবাধিকার সংস্থাগুলি। তাদের মতে, বর্তমানে চালু ‘কাফালা’ পদ্ধতি শ্রমিকদের নির্যাতন ও শোষণের সুযোগ করে দেয়। একজন মানবাধিকার কর্মী বলেন, ‘যে সংস্কার আনা হচ্ছে তা তাৎপর্যপূর্ণ। তবে তিনি সতর্ক করে দেন যে, কাফালা পদ্ধতির কিছুটা রয়ে যাচ্ছে এবং এটি পুরোপুরি বিলুপ্ত করা উচিত।’ একইকথা বলেছেন হিউম্যান রাইটস ওয়াচের গবেষক রোথনা বেগম। তিনি জানান, এই ঘোষণা তাৎপর্যপূর্ণ এবং এটা প্রবাসী শ্রমিকদের পরিস্থিতি উন্নয়নে সাহায্য করতে পারে। তবে এর মাধ্যমে ‘কাফালা’ পদ্ধতির পুরো বিলুপ্তি ঘটেনি।’ রোথনার কথায়, ‘সৌদি আরবে ঢুকতে একজন শ্রমিককে এখনও একজন নিয়োগকারীর প্রয়োজন হবে বলে মনে হচ্ছে, এবং নিয়োগকারীরা শ্রমিকদের আবাসন অনুমতি নবায়ন বা যেকোনো সময় তা বাতিলের ক্ষমতা রাখবেন। এর মানে হচ্ছে শ্রমিকরা এখনও নির্যাতন ও শোষণের শিকার হতে পারেন, কারণ নিয়োগকর্তাদের এই ক্ষমতা থাকবে। এছাড়া, কাফালায় এই সংস্কার সৌদির সাধারণ বাড়িতে কাজ করা বিদেশি শ্রমিকদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না বলে মনে হচ্ছে- যারা সবচেয়ে বেশি নিগ্রহের শিকার হন।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘হিউম্যান রাইটস ওয়াচের একটি গবেষণায় উঠে এসেছে যে সৌদি আরবে বহু লোক তাদের গৃহকর্মীকে কোনো ছুটি না দিয়ে দিনের পর দিন কাজ করিয়েছে, বেতন দেয়নি, অথবা তাদের ঘরেই আটকে রেখেছে।’

 

Related Articles

Back to top button
Close