fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউন বন্ধ স্কুল, বাড়ি গিয়ে শিশুদের পড়াচ্ছেন শিক্ষক মিসকিন, দিচ্ছেন আর্থিক মদত

দিব্যেন্দু রায়,ভাতারঃ এমন শিক্ষকও রয়েছেন। লকডাউনের কারনে বন্ধ স্কুল। পড়ুয়ারা যাতে পড়াশোনায় পিছিয়ে না পড়ে তাই অভিনব উদ্যোগ নিতে দেখা গেল ভাতারের এক প্রাথমিক স্কুল শিক্ষককে । ভাতারের ঝুঝকোডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা মিসকিন মন্ডল নামে ওই শিক্ষক নিজের খরচায় কেনা খাতায় হোমটাস্ক ঠিক করে দিয়ে তা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পড়ুয়াদের হাতে তুলে দিচ্ছেন । সেই হোমটাস্ক করার জন্য পড়ুয়াদের একটা করে পেনও কিনে দিচ্ছেন তিনি । শুক্রবার ঘুরে ঘুরে ১৮০ জন পড়ুয়ার হাতে খাতা,পেন তুলে দিতে দেখা গেল ওই শিক্ষককে । মিসকিন মন্ডল জানিয়েছেন, দু’সপ্তাহ পর তিনি ওই খাতাগুলি সংগ্রহন করে আনবেন । পাশাপাশি নতুন খাতা কিনে পড়ুয়াদের ফের হোমটাস্ক দিয়ে আসবেন । যতদিন লক ডাউন চলবে ততদিন এইভাবেই পড়ুয়াদের পড়াশোনায় সহযোগিতা করবেন বলে জানিয়েছেন মিসকিন ।

জানা গেছে, ভাতারের মেনাডাঙ্গা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন মিসকিন মন্ডল নামে ওই শিক্ষক । ঝুঝকোডাঙ্গা, মেনাডাঙ্গা, বামুনিয়া প্রভৃতি ৩-৪ টি গ্রামের তফসিলি জাতি-উপজাতি ও আদিবাসী সম্প্রদায়ভুক্ত গরীব পরিবারের ছেলেমেয়েরাই মুলত ওই স্কুলে পড়াশোনা করে । স্কুল ও দু’একটা টিউশনের ভরসায় ওই সমস্ত পরিবারের ছেলেনেয়েদের পড়াশোনা চলে । কিন্তু লক ডাউন ঘোষনার পর থেকেই স্কুল ও টিউশন দুইই বন্ধ রয়েছে । এদিকে অধিকাংশ পড়ুয়ার বাড়িতে পড়ানোর মত কেউ নেই । ফলে বর্তমান পরিস্থিতিতে ওই সমস্ত ছোট ছোট পড়ুয়াদের পড়াশোনা কার্যত লাটে উঠেছে।

মিসকিন মণ্ডল বলেন, “এই পরিস্থিতির কথা ভেবেই আমি পড়ুয়াদের হোমটাস্ক দিতে শুরু করেছি । যারা ভালো হোমটাস্ক করবে তাদের পুরষ্কার দেওয়ার কথাও বলেছি ৷ যাতে তারা আগ্রহের সঙ্গে পড়াশোনা করে ।’ নিজের স্কুলের পড়ুয়াদেরই পাশাপাশি অনান্য স্কুলের পড়ুয়াদেরও এভাবে তিনি পঠনপাঠনে সাহায্য করছেন বলে জানা গেছে। ভাতারের ওই স্কুল শিক্ষকের এই প্রকার উদ্যোগ সাড়া ফেলে দিয়েছে এলাকায়৷

Related Articles

Back to top button
Close