fbpx
আন্তর্জাতিকপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমেরিকার বিজ্ঞানী ত্রাণ পাঠালেন চণ্ডীপুরে

ভাস্করব্রত পতি, তমলুক : সুদূর মার্কিন মুলুক থেকে জন্মভূমির জন্য ত্রান পাঠালেন চণ্ডীপুরের মহিলা বিজ্ঞানী। মে আমেরিকায় ৬৬ হাজার মানুষ কোরোনাতে আক্রান্ত, সেখানকার একজন ভারতে কোরোনা আবহে সমস্যায় থাকা মানুষজনের জন্য ত্রাণের টাকা পাঠালেন। তিনি পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডীপুরের কাণ্ডপসরা গ্রামের প্রবাসী বিজ্ঞানী মিতা মাইতি।

 

চণ্ডীপুরের রবীন্দ্র পরিষদ সংস্থা এলাকায় সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল গড়ে তুলেছে। সেই সংস্থার সদস্য মিতা মাইতি। বর্তমানে তিনি আমেরিকার BISTOL MYERS SQUIBB COMPANY তে ক্যানসার বিষয়ক গবেষণারত বিজ্ঞানী। বিভিন্ন ঔষধও তৈরি করেন তিনি। কিন্তু দূরে বসেও সোস্যাল মিডিয়াতে জানতে পারেন দুর্দশার কথা। থেমে থাকেননি তিনি।

রবীন্দ্র পরিষদের সম্পাদক প্রতিক জানা বলেন, মিতা মাইতির পাঠানো টাকায় জেলার ছয়টি সংস্থার লোকজনকে নানা ত্রাণ সামগ্রী বিলি করা হয়েছে বাজকুল লায়ন্স ক্লাব ও কাঁথি লায়ন্স ক্লাবের সহযোগিতায়। আলু, পেঁয়াজ, চাল সহ নানা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেওয়া হয়েছে। আসলে এখানকার বেশ কিছু সংগঠনের বাসিন্দারা ভীষণভাবে নাজেহাল হয়ে আছেন। প্রত্যেকেই যথেষ্ট অসুবিধা তে পড়েছেন। নিদারুণ দুর্দশায় দিন কাটাচ্ছেন তাঁরা। বিজ্ঞানীর এই সাহায্য তাঁদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে এখন।

মিতা মাইতি জানিয়েছেন, দূরে থাকলেও তাঁর সাহায্য পৌঁছে যাবে নিয়মিত। যতদিন না পরিস্থিতি স্বভাবিক হচ্ছে ততদিন তিনি তাঁর সাহায্যের হাত বাড়িয়ে রাখবেন। বিদেশে থাকলেও তিনি নিয়মিত জন্মভিটার খোঁজ খবর রাখেন। তাই এরকম পরিস্থিতির কথা জানতে পেরে মার্কিন মুলুক থেকে পাঠিয়ে দিয়েছেন যথাসাধ্য সামর্থ্য।

কাঁথির কাজলা জনকল্যাণ সমিতির পরিচালনায়। ‘তপোবন শিশু আবাস’, নন্দীগ্রাম ২ এর ‘সোনালী হোম’, মহিষাদলের ‘দেউলপোতা সেবা সমিতি’, কাঁথির ‘ফরিদপুর বিবেকানন্দ লোকশিক্ষা নিকেতন’, খেজুরীর নেতাজী ১ পাঠচক্র পরিষদের ‘রামকৃষ্ণ বৃদ্ধাশ্রম’ এবং ‘কৃষ্ণনগর অনাথ আশ্রম’ এর আবাসিক দের হাতে ত্রানসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া চণ্ডীপুরের হবিচক, নানকারচক এবং মুরাদপুরের দুঃস্থ ৯০ জন পটশিল্পীদের বাড়িতে নানা সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়েছে। মূলতঃ ঐ বিজ্ঞানীর বাড়ির লোকজন যাবতীয় সামগ্রী কিনে দিচ্ছেন। সেসব প্রাপকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

Related Articles

Back to top button
Close