fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাঁথি শহরে “লড়াইয়ের মাঠে দেখা হবে’, নতুন ব্যানার ঘিরে রাজনৈতিক জল্পনা

মিলন পণ্ডা, (পূর্ব মেদিনীপুর): পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি শহরের নতুন ব্যানার ঘিরে জোর জল্পনা তৈরি হয়েছে। ব্যানারের লেখা রয়েছে ‘লড়াইয়ের মাঠে দেখা হবে’। ব্যানার নজরে আসার পরই রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে যায়। কিন্তু ব্যানারে কোনও নামই নেই। নেই কোন ছবিও। শুধুমাত্র নন্দীগ্রামের শহিদ সমাবেশের মঞ্চে দাঁড়িয়ে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দেওয়ার বক্তব্যের একটি লাইন ব্যবহার করা হয়েছে। এদিন কাঁথি শহরের বেতালিয়া কাছে ব্যানারটি নজরে আসে। নতুন ব্যানার পড়ার গোটা কাঁথি শহরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

মঙ্গলবার রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী নন্দীগ্রামে তেখালিতে রক্তাক্ত সূর্যোদয়ের বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ভূমি উচ্ছেদ প্রতিরোধ কমিটি। এদিন গোকুলনগর হাইস্কুল মাঠে জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান বক্তা ছিলেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক তথা মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। হাজারো দর্শকের ভিড়ে মাঝে মঞ্চে বক্তব্য দিতে গিয়ে মন্ত্রী বলেন, খুব ভালো লাগছে। ১৩ বছর পরে মনে পড়ল ? লড়াইয়ের মাঠে দেখা হবে। রাজনৈতিক মঞ্চে দেখা হবে। এদিন বিকেলে নন্দীগ্রামের হাজরাকাটায় তৃণমূলের ব্যানারে পাল্টা শহিদ সভা করেন। উপস্থিত ছিলেন পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু, সাংসদ দোলা সেন প্রমুখ।

আরও পড়ুন: টাইফুন ‘ভ্যামকো’র তাণ্ডবে বিপর্যস্ত ফিলিপাইন, মৃত এক, নিখোঁজ বহু

রাতেই কাঁথি শহর থেকে একটু দূরে এক অন্যরকম ব্যানার পড়ায় জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনীতি মহলে। যদিও নন্দীগ্রামের আঁচ যে বাংলার রাজনীতির উপর প্রভাব ফেলেছে তা কাঁথির এই ব্যানার দেখলে বোঝাই যায়। দীর্ঘ কয়েকমাস ধরে “আমরা দাদার অনুগামী”– এই নামেই শুভেন্দু অধিকারীর ছবি দিয়ে নানা স্লোগান দিয়ে ব্যানার পড়তে দেখা গিয়েছে। পরে অবশ্য অঙ্গীকারেরও ব্যানার পড়তে দেখা গিয়েছে কাঁথি শহরের বিভিন্ন প্রান্তে। এবার একদম আলাদা রকমের ব্যানার যা সাধারণ মানুষ থেকে রাজনৈতিক বিশ্লেষককে ভাবাতে শুরু করেছে।
পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তৃণমূল কংগ্রেস সম্পাদক কণিষ্ক পণ্ডা বলেন, কে বা কারা ওই ব্যানার লাগিয়েছে তা জানা নেই। অনুগামীরাও হতে পারে। তবে নন্দীগ্রামের মঞ্চে জননেতার বক্তব্যের লাইন তুলে ধরে কেউ ব্যানার লাগিয়েছে। যারা লাগিয়েছেন তারা নিশ্চই জননেতাকে ভালোবাসেন। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই তো নিশ্চই হবে। সম্মানের লড়াই। অধিকারের লড়াই।

Related Articles

Back to top button
Close