fbpx
অন্যান্যকলকাতাবিনোদনহেডলাইন

শারদ সম্মান ২০২০.. বেস্ট শারদীয়া সোশ্যাল অ্যাওয়ারনেস অ্যাওয়ার্ড পেল গড়িয়াহাট হিন্দুস্থান ক্লাব

বিপাশা চক্রবর্তী, কলকাতা: বর্তমান সময়ে আমরা সকলেই এক বিরুদ্ধ পরিস্থিতির শিকার। বলা যেতে পারে গোটা বিশ্ব এক কঠিন অসুখে আক্রান্ত যার নাম করোনা ভাইরাস। এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে সকলেই একযোগে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। দ্রুত হারে ছড়িয়ে পড়া এই ব্যাধির হাত থেকে নিস্তার পেতে গোটা বিশ্ব তাকিয়ে আছে ভ্যাকসিনের দিকে। গবেষকরা সেই ভ্যাকসিন যাতে শীঘ্র সমাজের সকল স্তরের সামনে তুলে ধরতে পারেন তার জন্য নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই অবস্থার মধ্যে আমাদের দোরগোড়ায় শারদ উৎসব। বলা যায় বাঙালি জাতির অন্যতম শ্রেষ্ঠ উৎসব এই দুর্গাপুজো। তবে এবছর সেই উন্মাদনা না থাকলেও মায়ের আগমনের মাধ্যমে জীবন থেকে দুঃখ, কষ্টকে দূরে সরিয়ে রেখে ইতিবাচক বার্তার মাধ্যমে ফের ঘুরে দাঁড়াতে চাইছে সকলেই।

এই অবস্থা মাথায় রেখেই আয়োজিত হল ‘শারদীয়া ডিজিটাল ইমপ্যাক্ট অ্যাওয়ার্ড ২০২০’। সামাজিক দূরত্ব, মানুষের সুস্থতাকে মান্যতা দিয়ে আজ সোমবার ১৯ অক্টোবর এক ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকের মাধ্যমে শারদ সম্মান পুরস্কারের কথা ঘোষণা করা হল। বিচারকরা তিনটি ক্যাটাগরির মাধ্যমের শ্রেষ্ঠত্ব বিচার করে এই পুজো কমিটিগুলির নাম ঘোষণা করেন। বিচারকের মধ্য ছিলেন বিশিষ্ট সুরকার ও গায়ক সুরজিৎ চ্যাটার্জি, বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী পরমা ব্যানার্জি, টলিউডের বিশিষ্ট অভিনেতা বিক্রম চ্যাটার্জি, ডিজে আকাশ রোহিরা, Q-Waits (কানাডা)এর সভাপতি দীপাঞ্জন বিশ্বাস, মায়োসূত্র(লন্ডন)’ ফ্যাশন ডিজাইনার রোশনি মুখার্জি, ডায়ালগ ইন এর পক্ষ থেকে পিনাকি গাঙ্গুলি।

এদিন দীপাঞ্জন বিশ্বাস বলেন, ‘শারদীয়া ডিজিটাল ইমপ্যাক্ট অ্যাওয়ার্ড ২০২০’র আয়োজন করতে পেরে আমরা খুব গর্বিত। বিচারকরা অত্যন্ত মনোযোগ ও গুরুত্বের সঙ্গে পুজোকমিটিগুলির নাম নির্বাচন করেছেন। আবেগ, আনন্দের মধ্যেও মানুষের সুরক্ষার প্রসঙ্গ সবার আগে। সেই কথা মাথায় রেখে ডিজিটাল শারদ সম্মান পুরস্কারের আয়োজন।  এই কাজে গোটা পশ্চিমবঙ্গের মানুষের যেভাবে সাড়া পেয়েছি তার জন্য আমরা উচ্ছ্বসিত। পুজো কমিটিগুলিও যে উদ্যমের সঙ্গে এই বিরুদ্ধ পরিস্থিতি মধ্য দিয়ে লড়াই করেছে তার আমাদের পক্ষে থেকে অনেক শুভেচ্ছা।

এই তিনটি ক্যাটাগরি হল- বেস্ট ডিজিটাল ইমপ্যাক্ট অ্যাওয়ার্ড, জুরি চয়েস অ্যাওয়ার্ড, পিপল চয়েস অ্যাওয়ার্ড ও বেস্ট শারদীয়া সোশ্যাল অ্যাওয়ারনেস অ্যাওয়ার্ড।

বেস্ট ডিজিটাল ইমপ্যাক্ট অ্যাওয়ার্ড- প্রথম বালিগঞ্জ কালচারাল অ্যাসোসিয়েশন, ফার্স্ট রানার আপ মুদিয়ালি ক্লাব, সেকেন্ড রানার আপ দমদম তরুণ দল।

জুরি চয়েস অ্যাওয়ার্ড-প্রথম পুরস্কার সমাজ সেবী সংঘ, ফার্স্ট রানার আপ আরবান ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন, সেকেন্ড রানার আপ কাশীবোস লেন দুর্গাপুজো।

পিপলস চয়েস অ্যাওয়ার্ড প্রথম গোয়াবাগান শারদউৎসব সম্মিলনী, ফার্স্ট রানার আপ দমদম পার্ক যুবকবৃন্দ, সেকেন্ড রানার আপ –ওয়ার্ড নম্বর ১ সাধারণ দুর্গাউৎসব ও প্রদর্শনী।

বেস্ট শারদীয়া সোশ্যাল অ্যাওয়ারনেস অ্যাওয়ার্ড পেল গড়িয়াহাট হিন্দুস্থান ক্লাব।

আগামীকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ট্রফিগুলি বিজয়ী পুজোকমিটি গুলির হাতে তুলে দেওয়া হবে।

এদিন এই পুরস্কার বিজয়ীদের নাম ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে সকলেই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। তবে এবছর প্যান্ডেলে দর্শক প্রত্যেকবারের মতো উৎসবের আনন্দে মাততে পারবে না, এটা ভাবলেই সকলের খারাপ লাগছে বলে জানান পুজো উদ্যোক্তারা। তবে সকলের সুস্থতার দিক বিবেচনা করে হাইকোর্টের রায়কে স্বাগত জানান প্রত্যেকেই।

প্রসঙ্গত, ‘শারদীয়া ডিজিটাল ইমপ্যাক্ট অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ প্রধান স্পনসর Q-Waits, রয়েছে মিষ্টি জগতের প্রসিদ্ধ নাম বাঞ্ছারাম সুইট, 91.9 ফ্রেন্ডস এফ.এম, আরবান (ভেনু পার্টনার), ডায়ালগ ইন( সোশ্যাল মিডিয়া পার্টনার), বাংলা সংবাদপত্র খবর ৩৬৫, আউট ডোর মিডিয়া পার্টনার হিসেবে রয়েছে পিডি, মায়োসূত্র (আন্তর্জাতিক গুডউইল পার্টনার), রিফিল (ট্রফি পার্টনার), সিটি কেবল (কেবল পার্টনার)।

Related Articles

Back to top button
Close