fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মহিলাকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় অভিযোগকারিণীকে লক্ষ্য করে গুলি, একটুর জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট

মিল্টন পাল, মালদা: মহিলাকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় বাড়ির সামনে গুলি করে প্রাণনাশের চেষ্টার অভিযোগ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। গৃহবধূর গায়ে গুলি না লাগলেও তাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এই ঘটনার পর স্থানীয় বাসিন্দাদের চিৎকার-চেঁচামেচিতে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পালিয়ে যায় হামলাকারীরা। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার কালিয়াচক থানার সুজাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ব্রহ্মোত্তর গ্রামে। ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, অভিযুক্তর নাম আবু বক্কার। গৃহবধূ রহিমা খাতুন (৩৩)। সুজাপুর এলাকার প্রাথমিক স্কুলের এক শিক্ষক আতিকুর রহমানের স্ত্রী রহিমা খাতুনের ওপরই এই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। আক্রান্ত রহিমা খাতুনের অভিযোগ,তার প্রতিবেশী যুবক আবু বাক্কার দীর্ঘদিন ধরে তাকে বিভিন্ন ভাবে উত্তক্ত করছে। বিভিন্ন ভাবে ফোনে কু-প্রস্তাব, অশ্লীল মেসেজ ছাড়া ও রাস্তাঘাটে উত্তক্ত করছিলো। প্রতিবাদ করলে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছল। এমনকি তার স্বামী ও একমাত্র ছেলেকে প্রাণে মেরে ফেলার কথা বলেও লাগাতার হুমকি দিত ওই যুবক ও তার দলবল বলে অভিযোগ।ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় রহিমা খাতুন গত চার মাস আগে ১৫ মে কালিয়াচক থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। তার ভিত্তিতে পুলিশ তদন্ত শুরু করলে, অভিযুক্ত যুবক আবু বক্কর এই মামলা তোলার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ দিতে থাকে। এরপরই প্রতিনিয়ত রাস্তাঘাটে ওই গৃহবধূকে উত্ত্যক্ত করা হচ্ছিল।ফের বৃহস্পতিবার দুষ্কৃতীদের প্রতিবাদ করায় নিয়ে গোলমাল বাধে তারপরে এই ঘটনাটি ঘটে।

আরও পড়ুন:তরঙ্গ কথা…

আক্রান্ত ওই গৃহবধূ রহিমা খাতুন বলেন, বৃহস্পতিবার গ্রামের কিছু মানুষের কথামতো আমার বাড়ির সামনে অভিযুক্তদের নিয়ে পুরো ঘটনার ব্যাপারে সালিশি সভা করা হয়। সেখানেই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মোবাইলের কথা, অশ্লীল মেসেজ প্রমাণ স্বরূপ আমি দেখাই। আর তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে অভিযুক্তরা। এরপর আমাকে মারধর করা হয় । বাড়ি যাওয়ার মুহূর্তে আমাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। কিন্তু সেগুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বৃহস্পতিবারের এই ঘটনার পর থেকেই বাড়ি ছাড়া হয়ে রয়েছি। যে কোনও মুহূর্তে আমার পরিবারকে খুন করা হতে পারে। আমরা প্রশাসনের সাহায্য চাইছি। অভিযুক্তর গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।
স্থানীয় বিধায়ক ইশা খান চৌধুরী, এভাবে দিনের আলোয় সালিশি সভা থেকে ফেরার পথে প্রকাশ্যেই গৃহবধূকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর ঘটনার কথা শুনেছি। পুলিশকে বলা হয়েছে দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া বলেন, গৃহবধূর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। নির্দিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে দুষ্কৃতীদের খোঁজ চালানো হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close