fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

গগন কাঁপানো শব্দ, মাত্র ৯ সেকেন্ডেই ধুলিস্মাৎ নয়ডার টুইন টাওয়ার

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: রবিবার দুপুর আড়াইটে। টানটান উত্তেজনা। সকলের চোখ টিভি দিকে। মাত্র ৯ সেকেন্ড। গুড়িয়ে দেওয়া হল ৯ বছর ধরে গড়ে তোলা এই আকাশচুম্বী বহুতল। নয়ডার টুইন টাওয়ার ভেঙে ফেলা হয়েছে। কুতব মিনারের থেকেও উঁচু ছিল ওই বহুতল ভবন। বিস্ফোরণ ঘটানোর কয়েক মুহূর্ত আগেও দায়িত্বপ্রাপ্তরা বলেছেন, আশা করি কিছু ভুল হবে না। দূষণ নিয়ন্ত্রণে এমারেল্ড কোর্ট চত্বরে আনা হয় ১১টি স্মগ গান। অট্টালিকার সামনে রাখা হয় দুটি। বাকি ৯টি স্মগ গান মোতায়েন করা হয় ওই এলাকার আশপাশে।

নয়ডার ৯৩-এ সেক্টরে এমারেল্ড কোর্টের টুইন টাওয়ারের চারপাশে মোতায়েন করা হয় বিপর্যয় মোকাবেলা বাহিনী। ৫৬০ জন পুলিশ কর্মী, রিজার্ভ ফোর্সের ১০০ জন এবং জরুরি বাহিনীর চারটি দল।

এমারেল্ড কোর্টে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা আবাসনগুলোর মাঝখানে মাথা তুলে দাঁড়ানো দুই যমজ অট্টালিকার নাম ছিল ‘অ্যাপেক্স’ এবং ‘সিয়ান’।

তবে ২০০০ সালে যখন ‘এমারেল্ড কোর্ট’ আবাসন তৈরির ভাবনাচিন্তা শুরু হয়, তখন এদের কথা ভাবা হয়নি। তখন কথা ছিল, গ্রেটার নয়ডার এই এলাকায় ১৪টি আবাসন ভবন তৈরি হবে। যার প্রত্যেকটি হবে ৯ তলা উচ্চতার। কিন্তু ২০১২ সালে হঠাৎ করেই বদলে যায় পরিকল্পনা।

নয়ডার এই টুইন টাওয়ার প্রথম থেকেই বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল। ৪০ তলা ভবন দুটি নির্মাণের সময় বহু আইন মানা হয়নি বলেও অভিযোগ করেছিলেন এলাকার বাসিন্দারা। যা নিয়ে প্রায় ১০ বছর ধরে চলে আইনি লড়াই।

অবশেষে ২০২২ সালের ১২ আগস্ট সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেন, ২৮ আগস্ট ভেঙে ফেলতে হবে এই বহুতল ভবন। শীর্ষ আদালতের সেই নির্দেশ মেনেই রবিবার পতন শেষ হল টুইন টাওয়ার। এক ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী থাকল দেশ।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close